দাজ্জালের আবির্ভাবের গুরুত্ব

 

দাজ্জালের আবির্ভাবের গুরুত্ব

 এক

 আল্লাহর রসুল বোলেছেনআদমের সৃষ্টি থেকে নিয়ে শেষদিন (অর্থাৎ কেয়ামত) পর্যন্ত যা কিছু ঘোটেছে ও ঘোটবে তার মধ্যে দাজ্জালের চেয়ে বড় আর কিছু ঘোটবে না[এমরান বিন হোসায়েন (রাঃ) থেকে মোসলেম]

 অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হাদীস, কারণ দাজ্জালের আবির্ভাবের গুরুত্বের কথা বোঝাতে যেয়ে বিশ্বনবী শব্দ ব্যবহার কোরেছেন আকবর’, অতি বড়আরও গুরুত্বপূর্ণ এই জন্য যে আদমের (আঃ) সৃষ্টি থেকে কেয়ামত অর্থাৎ মানবজাতির সৃষ্টি থেকে শেষ পর্যন্ত সময়ের মধ্যে সর্ববৃহৎ, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা হওয়াটা কম কথা নয়, নিঃসন্দেহে বলা যায় সাংঘাতিক, কারণ মানবজাতির জীবনে নুহের (আঃ) সময়ে মহাপ্লাবনে সমস্ত পৃথিবী ডুবে যেয়ে মানবজাতিসহ সব প্রাণী, পশুপক্ষী ধ্বংস হোয়ে গিয়েছিলোদুটি বিশ্বযুদ্ধে অল্প সময়ের মধ্যে কমপক্ষে চৌদ্দ কোটি মানব হতাহত হোয়েছে, ইতিহাসের আগে আরও অমন সর্বনাশা বিপর্যয় হয়তো হোয়েছেঅথচ মহানবী বোলছেন, ও সব কিছুর চেয়েও সাংঘাতিক ব্যাপার হবে দাজ্জালের আবির্ভাবমানবজাতির অতীতে কি কি ঘটনা ঘোটেছে তা আল্লাহ তাঁর রসুলকে জানিয়ে দিয়েছেন, কোরানই তার প্রমাণ আর ভবিষ্যতে কি কি ঘোটবে তাও যে তাঁর রসুল জানতেন তার প্রমাণ দাজ্জাল (Dajjal) ও অন্যান্য বহু ব্যাপার সম্বন্ধে তাঁর ভবিষ্যদ্বাণীদাজ্জালের আবির্ভাবের গুরুত্বের কথা বলার সময় অতীতে নুহের (আঃ) মহাপ্লাবনের কথা বা ভবিষ্যতে বিশ্বযুদ্ধের কথা তাঁর মনে ছিলো না এ কথা অসম্ভবকারণ তিনি সাধারণ লোক ছিলেন নাতিনি ছিলেন আল্লাহর রসুল, তাঁর প্রতিটি কথা, প্রতিটি শব্দ ভেবেচিন্তে বলাকাজেই এ এক সাংঘাতিক ভবিষ্যদ্বাণী এবং এমন মানুষের ভবিষ্যদ্বাণী যা অব্যর্থ, মিথ্যা হোতেই পারেনাঅথচ এমন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার সম্বন্ধে আমরা বেখেয়াল, উদাসীন কিন্তু এর চেয়ে তুচ্ছ হাজারও বিষয় নিয়ে তুলকালাম কোরছিএবার দেখা যাক দাজ্জাল (Dajjal) অর্থাৎ জড়বাদী, যান্ত্রিক ইহুদীখৃষ্টান সভ্যতার (Materialistic, Technological Judeo-Christian Civilization) আবির্ভাব মানবজাতির জীবনে সর্ববৃহৎ ও সবচেয়ে বিপজ্জনক ঘটনা কেন? এর গুরুত্ব ঠিকভাবে বুঝতে গেলে আমাদের আদমের (আঃ) অর্থাৎ মানবজাতির সৃষ্টির সময়ে ফিরে যেতে হবে

 

মহাকাশ, সেই মহাকাশে অগণ্য ছায়াপথ (Galaxy), নীহারিকা (Nebula), অসংখ্য সূর্য্য, চাঁদ, গ্রহ, এক কথায় এই মহাবিশ্ব আজ পর্যন্ত যার শেষ পাওয়া যায়নি, তা শুধু কুনআদেশ দিয়ে সৃষ্টি করার পর আল্লাহর ইচ্ছা হোল এমন একটি সৃষ্টি করার যার মধ্যে স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি থাকবেএই বিপুল, বিরাট মহাবিশ্বের প্রতি অণুপরমাণু তাঁর বেঁধে দেওয়া নিয়মে চোলছে, ঐ নিয়ম থেকে একটি চুলের কোটি ভাগের এক ভাগও সরে যাবার ক্ষমতা বা শক্তি কারো নেই, সে স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি কাউকে আল্লাহ দেন নিএ স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি তিনি তাঁর মালায়েকদেরও দেন নি; যে মালায়েক অর্থাৎ ফেরেশতার ওপর যে কাজের দায়িত্ব দিয়েছেন তা থেকে এক পরমাণু পরিমাণও ভ্রষ্ট হবার শক্তি তাদের দেন নিএবার তাঁর ইচ্ছা হোল তাঁর নিজের স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি তাঁর কোন সৃষ্ট জীবকে দিয়ে দেখা ঐ স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি নিয়ে সে কি করে (কোরানসুরা দাহর, আয়াত ২, )। তাই আল্লাহ সৃষ্টি কোরলেন আদমকে (আঃ)। যেহেতু এর দেহের ভেতর তিনি তাঁর নিজের আত্মা স্থাপন কোরবেন, সেই সম্মানে আদমের দেহ তিনি তৈরি কোরলেন কুনআদেশ দিয়ে নয়, তাঁর নিজের হাতে (কোরানসুরা সা, আয়াত ৭৫)। তারপর তার দেহের মধ্যে আল্লাহ তাঁর নিজের আত্মা থেকে ফুঁকে (প্রবেশ কোরিয়ে) দিলেন (কোরানসুরা হেজর, আয়াত ২৯; সুরা সাজদা, আয়াত ৯; সুরা সা, আয়াত ৭২)। আল্লাহ তাঁর নিজের আত্মা, যেটাকে তিনি বোলছেন আমার আত্মা, সেটা থেকে আদমের মধ্যে ফুঁকে দেওয়া অর্থ আল্লাহর কাদেরিয়াত অর্থাৎ যা ইচ্ছা তা করার স্বাধীন ইচ্ছাশক্তিসহ আল্লাহর সমস্ত সিফত, গুণ, চরিত্র আদমের মধ্যে চোলে আসাআল্লাহর রূহ্‌ আদমের অর্থাৎ মানুষের ভেতরে চোলে আসার সঙ্গে সঙ্গে সে অন্যান্য সমস্ত সৃষ্ট জিনিসের চেয়ে বহু ঊর্দ্ধে উঠে গেলো, কারণ তার মধ্যে তখন স্বয়ং আল্লাহর সমস্ত সিফত্‌সহ স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি এসে গেলো যা আর কোন সৃষ্টির মধ্যে নেইসে হোয়ে গেলো আশরাফুল মাখলুকাত, সমস্ত সৃষ্টির মধ্যে সর্বোচ্চ সম্মানিতস্বাধীন ইচ্ছাশক্তিসহ আল্লাহর রূহ্‌ যে তিনি মানবের দেহের ভেতর স্থাপন কোরলেন এটাই হোল মানুষের কাছে তাঁর আমানত, যে আমানত মানুষ ছাড়া আর কারো কাছে নেই (কোরানসুরা আহযাব, আয়াত ৭২)।

 

স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি নিয়ে মানুষ কি করে সে পরীক্ষা কোরতে গেলে অবশ্যই একটি বিরুদ্ধশক্তি প্রয়োজন, না হোলে পরীক্ষাই অর্থহীন, খালি মাঠে গোল দিলে তো আর পরীক্ষা হয় না, তাই আল্লাহ দাঁড় করালেন এবলিসকেতাকে শক্তি দিলেন মানুষের দেহমনের মধ্যে ঢুকে কুপরামর্শ দিয়ে তাকে প্রভাবিত ও পথভ্রষ্ট করারআল্লাহ যখন আদমকে সৃষ্টি করার সিদ্ধান্ত নিলেন তখন এবলিস মালায়েক অর্থাৎ ফেরেশতাদের মধ্যে একজনআদম অর্থাৎ আল্লাহর খলীফা মানুষ সৃষ্টির ব্যাপারে মালায়েকদের মতামত জানতে চাইলে এবলিসসহ তারা সবাই বোলেছিলোকেন আদম সৃষ্টি কোরতে চাও? আমরাইতো তোমার গুণকীর্ত্তণের জন্য যথেষ্ট, তোমার এ সৃষ্টিতো ফাসাদ (অত্যাচার, অবিচার, অশান্তি) আর সাফাকুদ্দিমা (যুদ্ধ, মারামারি, রক্তপাত) কোরবে (কোরানসুরা বাকারা, আয়াত ৩০)। এখানে প্রশ্ন আসেআল্লাহ তখনও আদমকে সৃষ্টিই করেননিশুধু বোলেছেন সৃষ্টি কোরতে চাই, এটুকু শুনেই মালায়েকরা কি কোরে বললো, সৃষ্টি করার পর এই নতুন সৃষ্টিটি কি কোরবে? এর জবাব হোচ্ছে আল্লাহ যদি শুধু এইটুকু বোলতেন যে আমি আদম নামে একটি জীব সৃষ্টি কোরতে চাই তবে মালায়েকরা কিছুই বোলতো নাকিম্বা হয়তো বলতো প্রভু! তুমি লক্ষ কোটি সৃষ্টি কোরেছো, আরও একটি কোরবে, এতে আমাদের কী বলার আছে? তোমার ইচ্ছা হোলে করোকিন্তু আল্লাহ তা বলেন নি, তিনি বোলেছিলেন আমি পৃথিবীতে আমার খলিফা সৃষ্টি কোরতে চাই (কোরানসুরা বাকারা, আয়াত ৩০)। এই খলিফা শব্দ থেকেই মালায়েকরা বুঝে গেল যে এই নতুন সৃষ্টিটি তাদের মত স্বাধীন ইচ্ছাশক্তিবিহীন একটি সৃষ্টি হবে না কারণ খলীফা অর্থ প্রতিনিধি, এবং প্রতিনিধি অর্থ হোল যার প্রতিনিধি তার শক্তি তার মধ্যে অবশ্যই থাকা, কমই হোক, বেশীই হোকতারা বুঝলো এই নতুন সৃষ্টি আদমের অর্থাৎ আল্লাহর প্রতিনিধির মধ্যে থাকবে আল্লাহর সিফত্‌, আল্লাহর গুণসমূহ যার মধ্যে স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি অন্তর্ভুক্তস্বাধীন ইচ্ছাশক্তি থাকা অর্থই হোচ্ছে আল্লাহর দেখানো পথ, হেদায়াহ মানা বা সেটা না মেনে নিজের ইচ্ছামত পথে চলার শক্তিআর আল্লাহর দেখানো পথে না চোলে নিজের তৈরী পথে চলার অবশ্যম্ভাবী ফল হবে ফাসাদ (সমাজের মধ্যে অন্যায়, অত্যাচার, অবিচার, অশান্তি) এবং সাফাকুদ্দিমা (যুদ্ধ, মারামারি, হত্যা, রক্তপাত) তাই মালায়েকরা আদমকে সৃষ্টির আগেই সে কথা বোলতে পেরেছিলো

 

অতি সংক্ষেপে এর পরের ঘটনাগুলি হোচ্ছে এই যে, আদমের (আঃ) অর্থাৎ মানুষের দেহ নিজ হাতে তৈরী কোরে তার দেহের ভেতরে আল্লাহর নিজের রূহ্‌, আত্ম থেকে ফুঁকে দিয়ে আল্লাহ মালায়েকদের আদেশ কোরলেন আদম অর্থাৎ মানুষকে সাজ্‌দা কোরতে (কোরানসুরা বাকারা, আয়াত ৩৪; সুরা আরাফ, আয়াত ১১)। এবলিস অস্বীকার কোরলো ও আল্লাহকে বোললো আমরা মালায়েকরা বোলেছিলাম তোমার এই নতুন সৃষ্টি এই আদম, তোমার এই খলীফা পৃথিবীতে অন্যায়, অবিচার, অত্যাচার আর যুদ্ধ, মারামারি, রক্তপাত কোরবেআমাদের এই কথা যে সত্য তা প্রমাণ কোরে দেখাবোআল্লাহ এবলিসের অর্থাৎ শয়তানের এ চ্যালেঞ্জ গ্রহণ কোরলেন, কারণ তাঁর খলীফা সৃষ্টির উদ্দেশ্যই ছিলো তাই পরীক্ষা করা যে তাঁর স্বাধীন ইচ্ছাশক্তিধর খলীফা কোন্‌ পথে চলে তা দেখাএবলিসের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ কোরে তিনি এই নতুন খেলার নিয়মকানুন, শর্ত্ত ইত্যাদি নির্দিষ্ট কোরে দিলেনসেগুলো হোল মোটামুটি এই:-

 

 

 

)এবলিসকে অনুমতি ও শক্তি দেওয়া গেলো যে সে আল্লাহর খলীফা আদমের দেহে, মনমগজে, শিরাউপশিরায় প্রবেশ কোরতে পারবে ও তাকে বুদ্ধি পরামর্শ দিতে পারবে

 

 

 

) আল্লাহ যুগে যুগে পৃথিবীর প্রতি জনপদে তাঁর নবীরসুলদের পাঠিয়ে মানুষকে হেদায়াহ অর্থাৎ পথ প্রদর্শন কোরবেন (কোরানসুরা উনুস, আয়াত ৪৭; সুরা নহ্‌ল, আয়াত ৩৬; সুরা রা, আয়াত ৭)। সে হেদায়াহ হোল তওহীদ, জীবনের সর্বস্তরে, সর্ব অঙ্গনে এক আল্লাহ ছাড়া আর কারো আইনকানুন, আদেশনিষেধ অস্বীকার করা এবং একমাত্র তাঁরই আদেশনিষেধ পালন করা

 

এরপর বনি আদমের সম্মুখে সমষ্টিগত জীবন পরিচালনার জন্য দুটি মাত্র পথ খোলা রোইলোহয় আল্লাহর সার্বভৌমত্ব স্বীকার কোরে নবীরসুলদের মাধ্যমে প্রেরিত আল্লাহর দেয়া জীবনবিধানকে (দীন) সমষ্টিগত জীবনে প্রতিষ্ঠা কোরে সেই মোতাবেক জীবন পরিচালনা করা অথবা এবলিসের পরামর্শ মেনে নিয়ে স্রষ্টার সার্বভৌমত্ব অস্বীকার কোরে নিজেদের অর্থাৎ মানুষের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠা কোরে নিজেরাই আইনকানুন তৈরী কোরে সেই মোতাবেক সমষ্টিগত জীবন পরিচালনা করাতৃতীয় কোন পথ রোইলো না

 

এই মহাবিশ্বের স্রষ্টার অসীম জ্ঞানের তুলনায় অতি সামান্য জ্ঞানের অধিকারী বনি আদমকে পরিস্থিতি ভালো কোরে বুঝে নেবার জন্য আল্লাহ তাদের জানিয়ে দিলেন যেঐ দুই পথের মধ্যে যে বা যারা তাঁর সার্বভৌমত্বকে (Sovereignty) স্বীকার কোরে নিয়ে নবীরসুলদের মাধ্যমে পাঠানো আইনকানুন,আদেশনিষেধকে তাদের সমষ্টিগত

 

জীবনে প্রতিষ্ঠা ও প্রয়োগ কোরবে তাদের তিনি গ্রহণ কোরবেন, ব্যক্তিগত সমস্ত অপরাধ, গোনাহ মাফ কোরে তাদের জান্নাতে স্থান দেবেনএই প্রতিশ্রুতি সমস্ত কোরানে ও সহিহ হাদীসে ছড়িয়ে আছেএটাকে আরও পরিষ্কার কোরে বুঝিয়ে দেবার জন্য আল্লাহর রসুল তাঁর বিশিষ্ট সাহাবা আবু যরকে (রাঃ) বোললেনযে লোক মৃত্যু পর্যন্ত আল্লাহর তওহীদের ওপর অটল থাকবে সে ব্যভিচারী ও চোর হোলেও জান্নাতে প্রবেশ কোরবে (হাদীসআবুযর গেফারী (রাঃ) থেকে বোখারী ও মোসলেম)।

 

এ ছাড়াও তিনি বহুবার বহুভাবে এ কথা পরিষ্কার কোরে দিয়েছেন যেআল্লাহর সার্বভৌমত্বে, সেরাতুল মুস্তাকীমে অর্থাৎ তওহীদে যে অটল থাকবে, বিচ্যুত হবে না, তার পৃথিবী ভর্ত্তি গোনাহও তাকে জান্নাত থেকে ফেরাতে পারবে নাএ ব্যাপারে বোখারী, মোসলেমসহ অসংখ্য হাদীস পেশ করা যায়আল্লাহর নবী বোলেছেনবান্দাদের সাথে আল্লাহর চুক্তি (Contract) হোচ্ছে যে তারা আল্লাহ ছাড়া আর কাউকে মানবে না, তাহোলেই আল্লাহ তাদের কোন শাস্তি দেবেন না (জান্নাতে প্রবেশ করাবেন); (হাদীসমোয়াজ (রাঃ) থেকে বোখারী, মোসলেম)।

 

তিনি আরও বোলেছেনযে হৃদয়ে বিশ্বাস করে যে আল্লাহ ছাড়া কোন এলাহ নেই এবং মোহাম্মদ (দঃ) তাঁর রসুল, আল্লাহ তার জন্য জাহান্নাম হারাম কোরে দেবেন (হাদীসওবায়দাহ বিন সোয়ামেত (রাঃ) ও আনাস (রাঃ) থেকে বোখারী, মোসলেম)। আল্লাহর রসুল আরও বোলেছেনজান্নাতের চাবী হোচ্ছে তওহীদ (হাদীসমুয়ায বিন জাবাল (রাঃ) থেকে আহমদ)। এখানে মনে রাখতে হবে যে এই তওহীদ বর্ত্তমানের ব্যক্তিজীবনের আংশিক তওহীদ নয়, এ তওহীদ সার্বিক জীবনের তওহীদ অর্থাৎ রাষ্ট্রীয়, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, আইনকানুন, দণ্ডবিধি, শিক্ষা ইত্যাদি মানব জীবনের সর্ব অঙ্গনের তওহীদ অর্থাৎ আল্লাহর সার্বভৌমত্ব

 

এই তওহীদের বিপরীতে শেরক ও কুফর সম্বন্ধে আল্লাহ বোলেছেন আমার ইচ্ছা হোলে আমি মানুষের সমস্ত গোনাহ, অপরাধ ক্ষমা কোরে দেবো, কিন্তু শেরক ও কুফর ক্ষমা কোরবোনাকুফর হোচ্ছে আল্লাহর সার্বভৌমত্বকে সরাসরি অস্বীকার কোরে মানুষের সমষ্টিগত জীবনের জন্য আইনকানুন, দণ্ডবিধি ইত্যাদি তৈরী কোরে সেই মোতাবেক জীবন পরিচালনা করা, আর শেরক হোল আল্লাহকে আংশিকভাবে স্বীকার কোরে ও আংশিকভাবে অস্বীকার কোরে জীবনের কোনও কোনও ক্ষেত্রে, বিষয়ে নিজেদের ইচ্ছামত আইনকানুন বা নিয়মপদ্ধতি তৈরী কোরে সেইমত চলাজীবনের যে কোন একটি মাত্র অঙ্গনেও আল্লাহর আইনের বদলে অন্য কোন আইন মানা শেরকআল্লাহ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হোয়েছেন যে তিনি শেরক (তাকে আংশিকভাবে অস্বীকার করা) ও কুফর (তাকে সম্পূর্ণভাবে অস্বীকার করা) কখনও ক্ষমা কোরবেন না (কোরানসুরা নেসা, আয়াত ৪৮, ১১৬ ও সুরা মোহাম্মদ, আয়াত ৩৪)।

 

তাহোলে দেখা যাচ্ছে যে যারা সমষ্টিগত ও সার্বিক জীবনে আল্লাহর সার্বভৌমত্ব যে সত্যিকারভাবে স্বীকার কোরে নিলো তারা তওহীদ গ্রহণ কোরলো, সেরাতুল মুস্তাকীমে যাত্রা শুরু কোরলো, দীনুল কাইয়্যেমাতে কায়েম হোলতারা পৃথিবীপূর্ণ ব্যক্তিগত গোনাহ নিয়েও আল্লাহর সামনে হাযির হোলে আল্লাহ সব ক্ষমা কোরে তাদের জান্নাত দেবেন (হাদীসআবুযর (রাঃ) থেকে তিরমিযি, তিবরানী ও বায়হাকী)। অন্যদিকে ঐ তওহীদে যারা নেই অর্থাৎ সমষ্টিগত ও সার্বিক জীবনে যারা আল্লাহর সার্বভৌমত্বকে স্বীকার করে নাই, বা আংশিকভাবে কোরেছে, তারা ব্যক্তিজীবনে যত সওয়াব ও পুণ্যের কাজই করুক আল্লাহ তা গ্রহণ কোরবেন না, তাদের জাহান্নামে দেবেনঅর্থাৎ সমষ্টিগত ও সার্বিক তওহীদ ব্যক্তিগত জীবনের সৎকাজ, তাকওয়ার পূর্বশর্ত্ত, ওটা না থাকলে পৃথিবীপূর্ণ নেক কাজ, সারারাত্রির নামায, সারা বছরের রোযা নিষ্ফল (কোরানসুরা আনআম, আয়াত ৮৮, এবং সুরা যুমার, আয়াত ৬৫ ও হাদীস)।

 

আল্লাহর খলিফা আদমকে (আঃ) তৈরী করার বিরুদ্ধে এবলিস ও মালায়েকদের যে যুক্তি ছিলো তা হোল এই যে, আদম অর্থাৎ মানুষ পৃথিবীতে ফাসাদ (অন্যায়, অবিচার, অত্যাচার, অশান্তি) ও সাফাকুদ্দিমা (রক্তপাত অর্থাৎ যুদ্ধ, মারামারি, হত্যা) কোরবে (কোরানসুরা বাকারা, আয়াত ৩০)। এবলিস ও মালায়েকরা এ কথা বলে নি যে মানুষ নামায পড়বে না, রোযা রাখবে না, যাকাহ দেবে না, হজ্ব কোরবে না, তারা চুরি, ডাকাতি ব্যভিচার কোরবে, মদ খাবে, জুয়া খেলবেতারা যে দুটো কারণ বোলেছিলো সে দুটোই সমষ্টিগত প্রশ্ন, ব্যক্তিগত নয় এবং একটু চিন্তা কোরলেই দেখা যায় যে মানুষ সৃষ্টির সময় থেকে এই দুটি সমষ্টিগত সমস্যাই আজ পর্যন্ত চোলে আসছে এবং আজও এর সমাধান করা যায়নিপ্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর লীগ অব নেশন্‌স্‌ (League of Nations) তৈরী কোরেও নয় এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জাতিসংঘ (United Nations) গঠন কোরেও নয়কারণ সোজাআল্লাহ মানুষকে অতি অল্প জ্ঞান দিয়েছেন, সে সৃষ্টির সমস্ত রহস্য জানে না; সৃষ্টির কেন, তার নিজের দেহ ও মন কেমন কোরে কাজ করে তাও সে ভালো কোরে বোঝে নাকাজেই মানুষের পক্ষে এটা অসম্ভব যে সে এমন একটা জীবনবিধান, জীবনব্যবস্থা, সংবিধান তৈরী কোরবে যেটা মেনে চোললে তার সমষ্টিগত জীবনে ফাসাদ আর সাফাকুদ্দিমা না থাকেএর একমাত্র সমাধান হোচ্ছে আল্লাহর সার্বভৌমত্ব স্বীকার কোরে নবীরসুলদের মাধ্যমে প্রেরিত জীবনবিধান (দীন) সমষ্টিগত ও সার্বিক জীবনে প্রতিষ্ঠা ও প্রয়োগ করা

 

সর্বশক্তিমান আল্লাহ এবলিসের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ কোরে যখন তাকে মানুষের দেহমনের মধ্যে, মস্তিষ্কের মধ্যে প্রবেশ কোরে মানুষকে প্রভাবিত ও প্ররোচিত (ওয়াসওয়াসা) করার অনুমতি দিলেন তখন এবলিস আল্লাহকে বললোআমি তোমার সেরাতুল মুস্তাকীমের ওপর তাদের (আদম সন্তানের) জন্য ওঁৎ পেতে থাকবোসেখান থেকে আমি তাদের ওপর সম্মুখ থেকে, পেছন থেকে, ডান থেকে, বাম থেকে আক্রমণ কোরবো (সেরাতুল মুস্তাকীম থেকে বিচ্যুত করার জন্য); (কোরানসুরা আরাফ, আয়াত ১৬১৭)। আদম সৃষ্টির বিরুদ্ধে যুক্তির মধ্যে যেমন এবলিস নামায, রোযা, হজ্ব, যাকাহ ও অন্যান্য এবাদত করা থেকে মানুষকে বিরত রাখার চেষ্টার কথা বলে নি, মানুষকে গোনাহে লিপ্ত করার চেষ্টার কথা বলে নি, আল্লাহকে চ্যালেঞ্জ করার সময়ও এবলিস ওগুলোর কোন কথাই বললো না, বললো আদমকে তোমার দেয়া সেরাতুল মুস্তাকীমের সহজ সরল রাস্তায় আমি ওঁৎ পেতে বোসে থাকবো, তোমার সৃষ্ট আদম, বনিআদম যখন ও পথে চোলবে তখন আমি তার সম্মুখ থেকে, পেছন থেকে, ডাইনে থেকে, বামে থেকে অর্থাৎ চারদিক থেকে তাকে আক্রমণ (Ambush) কোরবো তাকে তোমার ঐ সহজসরল পথ থেকে বিচ্যুত করার জন্যতাহোলে দেখা যাচ্ছে বনি আদমকে নামায, রোযা, হজ্ব, যাকাহ ইত্যাদি এবাদত থেকে বিরত করা বা গোনাহে লিপ্ত করাই এবলিসের লক্ষ্য নয়, তার লক্ষ্য হোচ্ছে মানুষকে সেরাতুল মুস্তাকীম থেকে বিচ্যুত করাসুতরাং সেরাতুল মুস্তাকীম নামায, রোযা, হজ্ব, যাকাতের চেয়ে বা গোনাহ থেকে বেঁচে থাকার চেয়ে অনেক বেশী প্রয়োজনীয়, অনেক বেশী গুরুত্বপূর্ণ

 

কী এই সেরাতুল মুস্তাকীম? কী এই সহজসরল পথ? এর নাম সহজসরল কেন? এর পরিষ্কার জবাব হোচ্ছেতওহীদ, সর্বব্যাপী তওহীদ, জীবনের সর্ব অঙ্গনের (Facet), সর্ব বিভাগের তওহীদসামগ্রিক জীবনের কোন অঙ্গনে আল্লাহর দেয়া আইনকানুন (শরিয়াহ) ছাড়া আর কাউকে, কোন কিছুকে না মানা, এই সহজসরল কথাএই জন্যই আল্লাহর রসুল আল্লাহর ঐ নীতিকে (সুন্নাতাল্লাহ) ব্যাখ্যা কোরে বোলেছেন যে, যাদের ঐ সেরাতুল মুস্তাকীম অর্থাৎ তওহীদ থেকে এবলিস বিচ্যুত কোরতে পারবে না তারা জীবনে যত বড় গোনাহই করুক, এমন কি এই দীনে যে দুটি মহাপাপের শাস্তি সর্বোচ্চ, অর্থাৎ ব্যভিচার ও চুরি, সে দুটি কোরলেও আল্লাহ তা মাফ কোরে তাদের জান্নাতে প্রবেশ করাবেনঐ সঙ্গে বিশ্বনবী মাটিতে একটি সরল রেখা টেনে বোললেনএই হোচ্ছে আল্লাহর রাস্তা, সেরাতুল মুস্তাকীমতারপর তিনি ঐ সোজা রেখা থেকে দুই দিকে কতগুলি রেখা টেনে বোললেনএগুলি ঐ সমস্ত রাস্তা যে রাস্তায় যাবার জন্য শয়তান ডাকতে থাকবেএই বোলে তিনি কোরান থেকে পড়লেন– “নিশ্চয়ই এই হোচ্ছে আমার (আল্লাহর) সহজ, সরল পথএই পথে চলো, অন্যান্য পথে চোল নাকারণ ঐ সব পথ তোমাদের আল্লাহর পথ থেকে বিচ্যুত কোরে দেবে” (হাদীসআব্দুলাহ বিন মাসুদ (রাঃ) থেকে আহমদ, নেসায়ী, মেশকাত)।

 

পেছনে বোলে এসেছি মালায়েকরা (এবলিস যাদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত ছিলো) মানুষ সৃষ্টির বিরুদ্ধে যে দুটি যুক্তি আল্লাহর কাছে পেশ কোরেছিলো, অর্থাৎ ফাসাদ ও সাফাকুদ্দিমা দুটোই সমষ্টিগত বিষয়, ব্যক্তিগত নয়ফাসাদ শব্দের মধ্যে সামাজিক, রাষ্ট্রীয়, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ইত্যাদি সর্বরকমের অন্যায়, অত্যাচার, অশান্তি এসে যায়আর সাফাকুদ্দিমা অর্থাৎ রক্তপাত শব্দের মধ্যে মারামারি, সংঘর্ষ, ছোট বড় যুদ্ধ, মহাযুদ্ধ সব এসে যায়অর্থাৎ এবলিস আল্লাহকে যে চ্যালেঞ্জ দিলো তার পরিষ্কার অর্থ হোল, ‘তোমার খলীফা অর্থাৎ বনিআদম, মানবজাতিকে আমি ফাসাদ আর সাফাকুদ্দিমায় পতিত করাবো এবং তা করাতে গেলে আমাকে মানুষকে তোমার এবাদত করা থেকে, নামায, রোযা, হজ্ব, যাকাহ ও অন্যান্য সওয়াবের কাজ থেকে বিরত করার কোন প্রয়োজন নেইশুধুমাত্র তাকে সেরাতুল মুস্তাকীম, তোমার তওহীদ, তোমার সার্বভৌমত্ব থেকে বিচ্যুত কোরতে পারলেই তো সে অবশ্যম্ভাবীভাবে ফাসাদ আর সাফাকুদ্দিমায় পতিত হবে, আর তা হোলেই তো আমার কেল্লা ফতেহ হোয়ে গেলতোমার সার্বভৌমত্ব থেকে বিচ্যুত করার পর সে যত খুশি নামায, রোযা, হজ্ব, যাকাহ কোরতে থাকুক আমার কোন আপত্তি নেই, কারণ আমার চ্যালেঞ্জে তো আমি জিতে গেলামএই জন্যই এবলিস কখনো আল্লাহকে এ চ্যালেঞ্জ দেয় নি যে, আদমকে এবাদত থেকে বিরত করাবার, বা গোনাহে লিপ্ত করাবার চেষ্টা কোরবে, সে চ্যালেঞ্জ দিয়েছে সেরাতুল মুস্তাকীমের, তওহীদের, সহজসরল রাস্তা থেকে আদমকে বিচ্যুত করাবারএর বিপরীতে আল্লাহ ঘোষণা দিয়ে দিলেনআমার তওহীদকে, আমার সার্বভৌমত্বকে যে বা যারা স্বীকার কোরে নেবে, তা থেকে বিচ্যুত হবে না তারা কত এবাদত কোরেছে, তারা কত গোনাহ কোরেছে, কিছুই আমি দেখবো না, তাদের জান্নাতে প্রবেশ করাবো, তারা ব্যভিচার ও চুরি কোরলেও (আবু যর (রাঃ) থেকে বোখারী, মোসলেম এবং আরও অসংখ্য হাদীস, ও কোরান)। সেই সঙ্গে তিনি এও বোলেছেন যে বা যারা শেরক কোরবে অর্থাৎ আমার সর্বব্যাপী তওহীদের কোথাও অন্যকে এতটুকু স্থান দেবে তাকে বা তাদেরকে আমি ক্ষমা কোরবো না, তাদের জাহান্নামে স্থান দেবোতারা যত ভালো আমলই করুক আমি তা গ্রহণ কোরবো না (কোরানসুরা যুমার, আয়াত ৬৪৬৬)।

 

আপাতদৃষ্টিতে আল্লাহর এই চরমপন্থী মনোভাব কেন? কারণ আছেমানুষ সমষ্টিগত জীবনে যে সংবিধান, আইনকানুন, দণ্ডবিধি, নিয়মপদ্ধতি স্বীকার কোরে তা মেনে চলে তার প্রভাব অতি শক্তিশালী, তা ব্যক্তি জীবনের কাজকর্মকে দারুণভাবে প্রভাবিত করে, নিয়ন্ত্রণ করেব্যক্তিগত জীবনপদ্ধতি যদি সমষ্টিগত জীবনব্যবস্থা থেকে ভিন্ন হয় তবে সমষ্টিগত জীবনের বৃহত্তর প্রভাবে ও চাপে ব্যক্তিগত জীবনপদ্ধতি ক্রমে দুর্বল হোতে হোতে বিলীন হোয়ে যাবেআর যদি ব্যক্তিগত জীবনপদ্ধতি সমষ্টিগত জীবনব্যবস্থার বিপরীত হয় তবে উভয়ের মধ্যে সংঘর্ষ হবে এবং সে সংঘর্ষে ব্যক্তিগত জীবনপদ্ধতি অবশ্যই পরাজিত হবেজোনাকী পোকার নিজের দেহের আলোকে তার ব্যক্তিগত কিছুটা কাজ হোতে পারে কিন্তু তা রাতের অন্ধকার দূর কোরতে পারে না

 

দ্বিতীয় কারণ হোল, যদি মানবজাতিকে একটি অন্যায়, অবিচার, অত্যাচার, অশান্তিহীন জীবন যাপন কোরতে হয়, অর্থাৎ যে জীবনে ফাসাদ ও সাফাকুদ্দিমা নেই তবে তাকে অবশ্যই এমন একটি সংবিধান ও ঐ সংবিধান নিঃসৃত আইনকানুন, দণ্ডবিধি প্রণয়ন কোরতে হবে যা নিখুঁত ও নির্ভুলমানবজাতির পক্ষে তা সম্ভব নয়, কারণ তার জ্ঞানের পরিধি ছোট, সীমিতআইনকানুন ও দণ্ডবিধির ভিত্তি হোচ্ছে মানুষের মনস্তত্ববর্ত্তমান পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মনোবিদ, মনোবিজ্ঞানীরা বোলছেনআমরা মানুষের বিশাল মনস্তত্বের শুধু দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছিকাজেই মানুষের পক্ষে ঐ রকম একটি নির্ভুল ও নিখুঁত সংবিধান, জীবনব্যবস্থা তৈরী করা সম্ভব নয়তাই আল্লাহ মানুষকে বোলেছেনআমার সার্বভৌমত্ব মেনে নাও, আমিই বিশাল সৃষ্টির স্রষ্টা, তোমাদের দেহ ও মনেরও স্রষ্টা, তাই আমি জানি কেমন সংবিধান, আইনকানুন, দণ্ডবিধি মেনে চোললে তোমরা ফাসাদ ও সাফাকুদ্দিমাহীন সমাজে বাস কোরতে পারবে, শান্তিতে (এসলামে) বাস কোরতে পারবেআর যদি আমারই দেয়া স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি ব্যবহার কোরে আমার সার্বভৌমত্ব অস্বীকার কোরে নিজেরা সার্বভৌম হোয়ে সংবিধান, আইনকানুন ও দণ্ডবিধি, অর্থনীতি তৈরী কোরে তাই মেনে চলো তবে এবলিস যে ফাসাদ ও সাফাকুদ্দিমায় তোমাদের ফেলবে বোলেছিলো তোমরা তাতেই পতিত হবে, তাহোলে সে আমাকে যে চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলো তাতে সে জয়ী হবে, আমি পরাজিত হবোআমি সর্বশক্তিমান, আমি ইচ্ছা কোরলেই সমস্ত পৃথিবীর মানুষ এই মুহুর্ত্তেই আমার সার্বভৌমত্বকে স্বীকার কোরে নেবে (কোরানসুরা আনআম, আয়াত ৩৫, সুরা ইউনুস, আয়াত ৯৯)। কিন্তু আমি তা কোরবো না, আমি দেখতে চাই আমার দেয়া স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি ব্যবহার কোরে তোমরা কী করোসার্বিক জীবনে আমার সার্বভৌমত্বকে অস্বীকার কোরে তোমরা যত সওয়াবের কাজই কর, যত এবাদতই কর, যত তাকওয়াই কর সমস্ত আমি ধুলাময়লার মত ছুঁড়ে ছিটিয়ে ফেলে দেবো (কোরানসুরা ফোরকান, আয়াত ২৩)।

 

আদম (আঃ) থেকে মোহাম্মদ (দঃ) পর্যন্ত হাজার হাজার (হয়ত লক্ষ লক্ষ) বছর ধরে মানুষের প্রতি জনপদে আল্লাহ তাঁর প্রেরিতদের, নবীরসুলদের পাঠিয়ে আসছেন (কোরানসুরা রা, আয়াত ৭, সুরা ইউনুস, আয়াত ৪৭, সুরা নহ্‌ল, আয়াত ৩৬)। সময় ও স্থানভেদে আইনকানুন তফাৎ হোয়েছে, কিন্তু মূল ভিত্তি সব সময় ঐ এক কথাতওহীদ, আল্লাহর সার্বভৌমত্বকারণ সার্বভৌমত্ব তাঁর না হোলে সংবিধানও তাঁর হবে না এবং সংবিধান নিঃসৃত আইনকানুন, দণ্ডবিধিও তাঁর হবে না এবং তা না হোলেই তা হোতে হবে মানুষের সার্বভৌমত্বের ওপর এবং পরিণতি হবে সেই ফাসাদ ও সাফাকুদ্দিমাআর আল্লাহর সার্বভৌমত্বকে স্বীকার কোরে নিলেই সংবিধান হবে তাঁর বাণী (পূর্বে অন্যান্য কেতাব, বর্ত্তমানে কোরান), আর তা থেকে নিঃসৃত আইনকানুন, দণ্ডবিধি, দীনযুগে যুগে পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে একের পর এক নবী ও রসুলদের আল্লাহ পাঠিয়েছেন, তারা এসে ঐ একই বাণী প্রচার কোরেছেন, তওহীদ, সেরাতুল মুস্তাকীম, দীনুল কাইয়্যেমা, শাশ্বতচিরন্তন, সনাতন ধর্মনবী রসুলরা চলে গেলে শয়তানের প্ররোচনায় তাঁদের উম্মাহ তাদের দীনকে বিকৃত কোরে ফেলেছেতাদের মধ্যে একটা পুরোহিত শ্রেণী গজিয়েছে, যারা সারা জীবন ঐ দীন নিয়েই ব্যস্ত থেকেছেশরিয়াহর বিধানগুলোকে নানাভাবে বিশ্লেষণ কোরে কোরে নতুন নতুন ফতোয়া বের কোরেছে ও তা জনসাধারণকে শিখিয়েছেসহজ সরল পথ সেরাতুল মুস্তাকীমকে এক দুর্বোধ্য, জটিল বিষয়ে পরিণত কোরে জাতিকে মূল লক্ষ্য থেকেই বিচ্যুত কোরে ফেলেছেতারা আল্লাহর কেতাবে যোগবিয়োগ কোরে তাদের স্বার্থের পরিপন্থী আদেশ নির্দেশগুলিকে বদলিয়ে স্বার্থের অনুকূলে নিয়ে এসেছেকঠিন আদেশগুলি, যেগুলি পালন কোরতে গেলে ক্ষতি হয়, ত্যাগের, কোরবানীর প্রয়োজন হয় সেগুলিকে বাদ দিয়ে সহজ কাজগুলিকে প্রাধান্য দিয়েছেএমনি কোরে বিকৃতি যখন এমন পর্যায়ে চোলে গেছে যে, সে দীন পালন কোরলে উপকারের চেয়ে অপকারই বেশী হোয়ে দাঁড়িয়েছে তখন সেটাকে শুধরিয়ে ভারসাম্যে ফিরিয়ে নেবার জন্য রহমানুর রহিম আল্লাহ আবার তাঁর নবীরসুল পাঠিয়েছেন

 

এইখানে একটি অতি প্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ কথা মনে রাখতে হবে, কারণ আদম (আঃ) থেকে কেয়ামত পর্যন্ত, অর্থাৎ মানবজাতির জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত সময়ের মধ্যে দাজ্জালের আবির্ভাব সবচেয়ে বৃহৎ, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা কেন, এই প্রশ্নের সঙ্গে এটা জড়িতকথাটা হোচ্ছে এই : পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে, বিভিন্ন সময়ে প্রতি জনপদে আল্লাহ প্রেরিত নবীরসুলদের আসা, তাঁদের চলে যাবার পর দীনকে বিকৃত করা, সে বিকৃতি শোধরাতে আবার নবীরসুলদের আসাএই নিরবচ্ছিন্ন ধারাবাহিকতার মধ্যে একটি বিষয় দৃঢ় ও অপরিবর্ত্তনীয়ভাবে চোলে এসেছেসেটা হোচ্ছেমানবজাতি তার জীবনব্যবস্থার আইনকানুনের উৎস হিসাবে কখনই স্রষ্টাকে আনুষ্ঠানিকভাবে অস্বীকার করে নাই, আল্লাহকে এলাহ হিসাবে কখনও অস্বীকার করে নাইআল্লাহর দেয়া দীনকে, আইনকানুন দণ্ডবিধিগুলিকে নিজেদের স্বার্থের অনুকূলে ব্যবহার করার জন্য, অন্যকে শোষণ করার জন্য দুমড়িয়ে, মুচড়িয়ে বিকৃত কোরে ফেলেছেকিন্তু ঐ বিকৃত রূপরেখাকেও ধর্মের অনুশাসন বোলেই চালাতে হোয়েছেসার্বভৌম হিসাবে আল্লাহকে অস্বীকার কোরে সার্বভৌমত্ব নিজেদের হাতে কখনই তুলে নেয়া হয় নি, নেবার চেষ্টাও করা হয় নিকথাটা আরও একটু পরিষ্কার করা দরকার কারণ দাজ্জাল (Dajjal) এত গুরুত্বপূর্ণ কেন যে তাকে আল্লাহর শেষ রসুল মানবজাতির জন্ম থেকে শেষ পর্যন্তসম্পূর্ণ সময়টার মধ্যে সবচেয়ে বড় ঘটনা বোলে বর্ণনা কোরেছেনএই যে বোললাম যে মানুষ কখনই আল্লাহকে এলাহ হিসাবে অস্বীকার করে নাইএ কথাটার একটু ব্যাখ্যার প্রয়োজন আছেধর্মের অনুশাসন বোলে হুকুম চালালেও ক্রমশ বিকৃতি এমন পর্যায়ে চোলে গেছে যে আল্লাহর সার্বভৌমত্ব শুধু মুখে স্বীকৃতি দিলেও কার্য্যতঃ সার্বভৌমত্ব মানুষের হাতে চোলে গেছেযেমন ফেরাউন নিজেকে রাঅর্থাৎ সূর্য্যের উপাসক বোলে প্রচার কোরলেও সে নিজেই সার্বভৌম হোয়ে গিয়েছিলোকিন্তু মনে রাখতে হবে যে ফেরাউনের এই সার্বভৌমত্ব ছিলো কার্য্যতঃ, আনুষ্ঠানিকভাবে নয়, সে তার সার্বভৌমত্ব সূর্য্য দেবতা রা’- এর নামে চালাতোদ্বিতীয়তঃ তার ঐ সার্বভৌমত্ব (উলুহিয়াহ্‌) সীমিত ছিলো মিশরে, পৃথিবীময় নয়দাজ্জালের অর্থাৎ মানুষের এই সার্বভৌমত্ব কার্য্যতঃ ও আনুষ্ঠানিক উভয়ই এবং পৃথিবীময়, তাই এটা মানব ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ঘটনা

 

দুটি উদাহরণ দিচ্ছি: আল্লাহর নবী মুসার (আঃ) দীনকে পুরোহিত শ্রেণী, রাব্বাই, সাদ্দুসাই ও ফারিসীরা যখন চুলচেরা বিশ্লেষণ কোরে ও নিজেদের স্বার্থের অনুকূলে ব্যবহার কোরে বিকৃত কোরে ফেললো, তখন সেটাকে শোধরাতে, ওটাকে নতুন জীবন দিতে আল্লাহ পাঠালেন তাঁর অন্য নবী ঈসাকে (আঃ)। ইহুদীদের ঐ আলেম শ্রেণী, রাব্বাইসাদ্দুসাইরা আল্লাহর কেতাব তওরাত পড়াশোনা কোরেছেন সারা জীবন, তওরাতের আইনকানুনের ওপর কঠোর গবেষণা কোরেছেন, তারা কখনোই আল্লাহর সার্বভৌমত্ব অস্বীকার করেন নাই, তাঁর কেতাব তওরাতকেও অস্বীকার করেন নাইতওরাতের আইনকানুনগুলিকে তারা অতিবিশ্লেষণ কোরে বিকৃত কোরে ফেলেছিলেন, কিন্তু ঐ বিকৃত আইনগুলিকে তাদেরকে তওরাতের আইন বোলেই চালাতে হোয়েছেরাব্বাইসাদ্দুসাইরা এ কথা বোলতে পারেন নি, বা বলেন নি যে তওরাতের আইনকানুন অচল হোয়ে গেছে, তাই আমরা আইনকানুন, দণ্ডবিধি, অর্থনীতি এসব নতুন কোরে তৈরী কোরছিএই উপমহাদেশের হাজার হাজার বছরের ইতিহাসও তাইমনু অর্থাৎ নুহের (আঃ) মাধ্যমে আল্লাহ যে শরিয়াহ অর্থাৎ আইনকানুন, দণ্ডবিধি, অর্থনীতি, রাষ্ট্রনীতি ইত্যাদি পাঠিয়েছিলেন পরবর্ত্তীতে তা পুরোহিত শ্রেণী তাদের কায়েমী স্বার্থের জন্য বিকৃত কোরে ফেললেও তা ঐ মনুসংহিতার নামেই অর্থাৎ আল্লাহর দেয়া আইন বোলেই চালাতে হোয়েছেক্ষত্রিয় রাজারা দেশ জাতি শাসন কোরতেন কিন্তু আইন ও আইনের ব্যাখ্যা দিতেন পুরোহিতরা শাস্ত্র দেখে দেখে, রাজাদের সাধ্য ছিলো না তা অস্বীকার কোরে নিজেরা আইন তৈরী কোরে নেবারতা কোরতে গেলে বা শাস্ত্র লংঘন কোরতে গেলে তৎক্ষণাৎ মাৎস্যন্যায় (বিদ্রোহ কোরে রাজাকে হত্যা) হোয়ে যেতোএমনকি যাদের মধ্যে আল্লাহর শেষ ও শ্রেষ্ঠ নবী আবির্ভূত হোলেন, যাদের আমরা মোশরেক ও কাফের বোলে জানি তারাও আল্লাহকে বিশ্বাস কোরতো, তাঁকে সমস্ত সৃষ্টির স্রষ্টা বোলে জানতো

 

এ কথার সাক্ষ্য স্বয়ং আল্লাহ দিচ্ছেনতিনি তাঁর রসুলকে বোলছেনতুমি যদি তাদের (আরবের অধিবাসীদের) জিজ্ঞাসা কর আসমান ও যমীন কে সৃষ্টি কোরেছেন? তবে তারা অবশ্যই জবাব দেবে সেই সর্বশক্তিমান মহাজ্ঞানী (আল্লাহ); (কোরানসুরা যুখরুফ, আয়াত ৯)। অন্যত্র বোলছেনতুমি যদি তাদের প্রশ্ন করআকাশ ও পৃথিবী কে সৃষ্টি কোরেছেন এবং কে সূর্য্য ও চাঁদকে তাদের (কর্ত্তব্য কাজে) নিয়োজিত ও নিয়ন্ত্রণ কোরছেন? তবে তারা অবশ্যই বোলবে, আল্লাহ (কোরানসুরা আন্‌কাবুত, আয়াত ৬১)। আল্লাহ আবার বোলছেনযদি তুমি তাদের জিজ্ঞাসা করমাটি (পানির অভাবে শুকিয়ে যেয়ে) মরে যাবার পর আকাশ থেকে পানি বর্ষণ কোরে কে তাকে আবার পুনর্জীবন দান করেন? তবে তারা অবশ্যই বোলবেআল্লাহ (কোরানসুরা আন্‌কাবুত, আয়াত ৬৩)। তিনি আবার বোলছেন তাঁর রসুলকেযদি তাদের প্রশ্ন করকে এই মহাকাশ ও পৃথিবী সৃষ্টি কোরেছেন? তবে তারা অবশ্যই জবাব দেবেআল্লাহ (কোরানসুরা লোকমান, আয়াত ২৫)। আল্লাহর শেষ রসুল যখন আরবের তথা পৃথিবীর মোশরেক ও কাফেরদের তওহীদের, আল্লাহর সার্বভৌমত্বের দিকে ডাক দিয়েছিলেন তখন তারা বোলেছিলোআমরা কি আল্লাহকে বিশ্বাস কোরি না? অবশ্যই বিশ্বাস কোরি, আমরা হুবাল, লাত, মান্নাতকে পূজা কোরি তো শুধু এই জন্য যে তারা আল্লাহর কাছে আমাদের জন্য সুপারিশ কোরবে (কোরানসুরা ইউনুস, আয়াত ১৮)। আমরা কি কাবাকে আল্লাহর ঘর বোলে বিশ্বাস কোরি না? অবশ্যই কোরিআমরা কি আমাদের সন্তানদের নাম আব্দুলাহ রাখি না? আমরা প্রতি কাজ কি আল্লাহর নাম নিয়ে শুরু কোরি না? নিশ্চয়ই কোরিতাহোলে তুমি আমাদের আবার কোন তওহীদ শেখাতে চাও? মোটকথা আদম (আঃ) থেকে নিয়ে মানবজাতি কখনই আল্লাহর সার্বভৌমত্বকে আনুষ্ঠানিকভাবে অস্বীকার কোরে সার্বভৌমত্বকে নিজেদের হাতে তুলে নেয় নিকিন্তু সৃষ্টির প্রথম থেকে এটাই ছিলো এবলিসের ঘোষিত লক্ষ্যযখন সে আল্লাহকে চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলো যে তোমার খলীফাকে আমি তোমার সেরাতুল মুস্তাকীম থেকে বিচ্যুত কোরবো, তখন সে এ কথাই বুঝিয়েছিলো যে সে তাকে আল্লাহর সার্বভৌমত্বকে অস্বীকার করাবে, তাঁর সর্বব্যাপী তওহীদকে অস্বীকার করাবে

 

যুগে যুগে পৃথিবীর প্রতি জনপদে নবীরসুল পাঠিয়ে মানুষকে হেদায়াহ্‌, পথপ্রদর্শনের প্রক্রিয়ায় আল্লাহ বনিএসরাঈলীদের মধ্যে পাঠালেন তাঁর নবী মুসাকে (আঃ)। যে কয়েকজন নবী আল্লাহর কাছ থেকে শরিয়াহ নিয়ে এসেছেন মুসা (আঃ) তাঁদের অন্যতমশরিয়াহ হোল সমষ্টিগত ও ব্যক্তিগত জীবন পরিচালনার জন্য নিয়মপদ্ধতি, আইনকানুন, দণ্ডবিধি, অর্থনীতি ইত্যাদিঅর্থাৎ মানব জীবন পরিচালনার জন্য যা কিছু প্রয়োজন সবই শরিয়াহর অন্তর্ভুক্তমুসা (আঃ) পৃথিবী থেকে চোলে যাবার পর বনিএসরাঈলীদের মধ্যে সেই সব বিকৃতি এসে গেলো যেগুলি পূর্ববর্ত্তী সব জাতির মধ্যে এসেছেমুসার (আঃ) উম্মতের মধ্যে একটি পুরোহিত শ্রেণী গজালো যারা শরিয়াহর আইনকানুন গুলির চুলচেরা বিশ্লেষণ কোরে কোরে নতুন নতুন ফতোয়া আবিষ্কার কোরে তা জনসাধারণের ওপর চাপাতে থাকলোক্রমে ক্রমে এমন অবস্থা দাঁড়ালো যে, দীনের আসল উদ্দেশ্যই তাদের সামনে থেকে লোপ পেয়ে পুংখানুপুংখভাবে শরিয়াহ পালনই তাদের মুখ্য লক্ষ্য হোয়ে দাঁড়ালো

 

দীনের এই বিকৃতির শাস্তি হিসাবে আল্লাহ বনি এসরাঈল জাতিকে দেবদেবী পূজক ইউরোপীয় রোমানদের দাসে পরিণত কোরে দিয়েছিলেন, যেমন একই কারণে পরবর্ত্তীতে মোসলেম নামে পরিচিত জাতিটাকে ইউরোপের বিভিন্ন খৃষ্টান জাতিগুলির দাসে পরিণত কোরে দিয়েছেনঈসা (আঃ) যখন বনিএসরাঈলীদের মধ্যে আবির্ভূত হোলেন তখন তারা দেবদেবী পূজারী (Pagan) রোমানদের দাসএই নতুন নবী ঈসা (আঃ) তাঁর সঙ্গে কোন শরিয়াহ আনলেন না কারণ তাঁর পূর্ববর্ত্তী মুসার (আঃ) শরিয়াহ তখনও মোটামুটি অবিকৃত ছিলোঈসা (আঃ) বনিএসরাঈল জাতিকে যা যা বোললেন তার মধ্যে প্রধান প্রধান বিষয় হোল:-

 

 

 

() আমি মুসার শরিয়াহ (আইনকানুন, Law of Moses) বাতিল কোরতে আসি নাই, বরং ওটাকে সত্যায়ন ও সমর্থন কোরতে এসেছিএই কথা বোলে ঈসা (আঃ) বুঝাচ্ছেন যে তিনি মুসার (আঃ) শরিয়াহতে কোন হস্তক্ষেপ কোরতে আসেন নি, দীনের আত্মাকে বাদ দেওয়ায় ঐ শরিয়াহ প্রাণহীন হোয়ে গেছে, কাজেই সেই প্রাণকে অর্থাৎ ভারসাম্যকে আবার যথাস্থানে প্রতিষ্ঠার জন্যই তিনি প্রেরিত হোয়েছেন

 

 

 

() শুধুমাত্র এসরাঈলের পথভ্রষ্ট মেষগুলি ছাড়া অন্য কারো জন্য আমাকে পাঠানো হয় নাই (বাইবেলনিউ টেস্টামেন্ট, ম্যাথু ১৫:২৪)। এ কথা বোলে ঈসা (আঃ) তাঁর উপর আল্লাহর দেয়া দায়িত্বের সীমার কথা পরিষ্কার কোরে দিলেনপরে আরও পরিষ্কার কোরলেন যখন তিনি তাঁর প্রধান বারজন শিষ্যকে প্রচার কাজে চারিদিকে পাঠিয়ে দিলেনতাদের তিনি নির্দেশ দিয়ে দিলেন তোমরা অন্য কোন জাতির মধ্যে যাবে না, স্যামারিয়ানদের কোন নগরীতে, শহরে প্রবেশ কোরবে নাতোমরা শুধুমাত্র এসরাঈলী সমাজের পথভ্রষ্ট মেষগুলির কাছে যেতে থাকবে (বাইবেলনিউ টেস্টামেন্ট, ম্যাথু ১০:)।

 

আল্লাহর প্রত্যেক নবীকেই তাঁর পূর্ববর্ত্তী নবীর উম্মাহর পুরোহিত শ্রেণী প্রচণ্ডভাবে বাধা দিয়েছে, সর্বতোভাবে তাঁর বিরোধিতা কোরেছেকোন নবীই এর ব্যতিক্রম ননকারণ

 

 

 

প্রথমতঃ পূর্ববর্ত্তী নবীর দীনের বিকৃত রূপটাকেই পুরোহিত শ্রেণী প্রকৃত দীন বোলে বিশ্বাস কোরতোনতুন নবী যখন ঐ বিকৃত রূপের বিরুদ্ধে কথা বোলেছেন তখন তারা মনে কোরেছেঐ লোক পথভ্রষ্ট

 

 

 

দ্বিতীয়তঃ দীন সম্বন্ধে তাদের জ্ঞানের অহংকারসারা জীবন ধর্ম বিষয়ক ব্যাপার নিয়ে গবেষণা পড়াশোনা কোরে তাদের মধ্যে জ্ঞানের প্রচণ্ড অহংকার জন্ম নিয়েছেপক্ষান্তরে নবী আবির্ভূত হোয়েছেন প্রায় প্রতিক্ষেত্রে নিরক্ষর হোয়ে, কিন্তু আল্লাহ থেকে সরাসরি জ্ঞানপ্রাপ্ত হোয়েকাজেই পুরোহিত শ্রেণী, আলেমরা ঐ নিরক্ষর মানুষের কথা মানতে রাজি হয় নি

 

 

 

তৃতীয়তঃ ঐ পুরোহিত শ্রেণী আল্লাহর দেয়া কেতাবের বিকৃত ব্যাখ্যা কোরে কেতাবের আয়াত বিক্রী কোরে অর্থ উপার্জন করা হারামকে (কোরানবাকারা ১৭৪, ইয়াসীন ২০২১) (নিষিদ্ধ) জায়েজ কোরে নিয়েছে তা নতুন নবী অবশ্যই বিরোধিতা কোরেছেনপুরোহিত শ্রেণীর পক্ষে তা মেনে নেওয়া অসম্ভবও ছিলো; কারণ তা মেনে নিলে তাদের অবৈধ রুজিরোজগার বন্ধ হোয়ে যায়

 

 

 

চতুর্থতঃ পুরোহিত শ্রেণী দেখেছে যেএই লোককে স্বীকার কোরে নিলে সমাজের সম্মানিত প্রভাবশালী স্থান থেকে তাদের পতন, এক কথায় কায়েমী স্বার্থের অবসানএইসব কারণে এক নবীর উম্মাহর পুরোহিত শ্রেণী কখনও নতুন নবীকে স্বীকার কোরে নেয় নিসব সময় নতুন নবীকে স্বীকার কোরে নিয়েছে সাধারণ জনগণের মধ্য থেকে মানুষঈসার (আঃ) ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম হোল নামুসার (আঃ) ধর্মেও পুরোহিত শ্রেণী রাব্বাই, সাদ্দুসাই, ফারিসীরা, অর্থাৎ আলেম শ্রেণী একযোগে উঠে পোড়ে লেগে গেলো নতুন নবী ঈসার (আঃ) প্রচণ্ড বিরোধিতায়এই বিরোধিতায় তারা সাহায্য নিলো তাদের শাসক রোমানদেররোমানরা প্রথমে ইহুদীদের ভেতর ধর্ম নিয়ে বিবাদে জড়িয়ে পোড়তে চায় নি, কিন্তু পুরোহিত শ্রেণী ঈসাকে (আঃ) রোমানদের শাসনের ও প্রভুত্বের পক্ষে এক বিপজ্জনক শক্তি হিসেবে উপস্থাপিত কোরলো ও অনেক চেষ্টার পর তাদের বিশ্বাস করাতে সমর্থ হোলোএরপর রোমানদের দিয়ে ঈসাকে (আঃ) মৃত্যুদণ্ড দিয়ে যখন তা কার্য্যকরী করার জন্য তাঁকে ক্রুশে ওঠাবার বন্দোবস্ত কোরলো তখন আল্লাহ মালায়েক অর্থাৎ ফেরেশতাদের দিয়ে সশরীরে তাঁকে আসমানে উঠিয়ে নিলেন এবং ঈসার (আঃ) যে শিষ্য বিশ্বাসঘাতকতা কোরে তাঁকে আলেম ও রোমানদের হাতে ধোরিয়ে দিয়েছিলো তার দেহ ও চেহারা একদম ঈসার (আঃ) মত কোরে দিলেন, তারা ঈসা (আঃ) মনে কোরে তাকেই  ক্রুশে উঠিয়ে হত্যা কোরলো

 

আল্লাহর নবী ঈসা (আঃ) মাত্র তিন বছর বনিএসরাঈলীদের হেদায়াত করার সময় পেয়েছিলেনএই তিন বছরের অক্লান্ত চেষ্টার ফলে ৭২ জন, মতান্তরে ১২০ জন ইহুদী তাদের ভুল বুঝতে পেরে ঈসার (আঃ) শিষ্যত্ব গ্রহণ কোরেছিলোআল্লাহ ঈসাকে (আঃ) আসমানে উঠিয়ে নেয়া ও ঈসার (আঃ) চেহারার জুডাস্‌ ইস্‌কারিয়াসকে ঈসা (আঃ) মনে কোরে ক্রুশে উঠিয়ে প্রাণদণ্ড দেয়ার পর ঈসার (আঃ) ঐ ৭২ বা ১২০ জন আসহাব প্রাণভয়ে নানাদিকে ছড়িয়ে ও লুকিয়ে গেলেন, কেউ একেবারে দেশ ছেড়ে পালিয়ে গেলেনযারা প্যালেস্টাইনে রোয়ে গেলেন তারা গোপনে ঈসার (আঃ) দেখানো পথে চোললেও প্রকাশ্যে নিজেদের রাব্বাই, সাদ্দুসাই ও ফারিসীদের মতের সমর্থন দিয়ে প্রাণ বাঁচানো ছাড়া তাদের আর কোন উপায় রোইলো নাএর কিছুদিন পর পল নামে একজন ইহুদী ঈসার (আঃ) ওপর ঈমান আনলেনইনি সত্যিই ঈসাকে (আঃ) বিশ্বাস কোরেছিলেন কিনা তা সন্দেহের বিষয় কারণ তার পরবর্ত্তী কাজকর্ম গভীরভাবে বিশ্লেষণ কোরলে মনে হয় যে, ঈসার (আঃ) শিষ্যদের মধ্যে ঢুকে তাদের সত্যপথ থেকে বিচ্যুত কোরে দেয়াই ছিলো তার উদ্দেশ্য

 

ঈসা (আঃ) খৃষ্টান ধর্ম বোলে নতুন ধর্ম প্রচার করার জন্য আসেন নি, সে চেষ্টাও কখনও করেন নিইহুদীদের ধর্ম, অর্থাৎ মুসার (আঃ) মাধ্যমে প্রেরিত জুডাই (প্রকৃতপক্ষে সেই তওহীদ, এসলাম) ধর্ম পুরোহিতদের হস্তক্ষেপের ফলে ভারসাম্য হারিয়ে যে বিকৃতির মধ্যে পতিত হোয়েছিলো সেই বিকৃতি থেকে সেটাকে উদ্ধার করার জন্য এসেছিলেন ঈসা (আঃ)। ঠিক যেমন বুদ্ধ (আঃ) প্রেরিত হোয়েছিলেন তদানীন্তন বৈদিক, সনাতন ধর্মের বিকৃতিকে শোধরাবার জন্যপল ঈসার (আঃ) শিষ্যদের মধ্যে ঢুকে যে কয়টি পরিবর্ত্তনের চেষ্টা কোরলেন তার মধ্যে সর্বপ্রধানটি হোচ্ছে ঈসার (আঃ) শিক্ষাকে বনি এসরাঈলীদের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে এটাকে বাইরে অইহুদীদেও মধ্যে প্রচার করা ও তাদের ঈসার (আঃ) শিষ্যত্ব গ্রহণ কোরতে আহ্বান করাপল যখন ঈসার (আঃ) শিষ্যদের তাদের নবীর শিক্ষার বিরোধী এই প্রস্তাব দিলেন তখন তারা কেউ জেরুসালেমে ছিলেন না, ইহুদী আলেমদের ভয়ে তারা স্বদেশ থেকে গ্রীসে, এবং উত্তরসিরিয়ার বিভিন্ন শহরে নগরে পালিয়ে গিয়েছিলেনকিছুসংখ্যক শিষ্যসাহাবা প্রাণ বাঁচাতে এন্টিয়ক শহরে চলে গিয়েছিলেন যাদের মধ্যে ঈসার (আঃ) বারজন প্রধান শিষ্যদের অন্যতম বারনাবাসও ছিলেনএদের কাছে পল যখন তার ঐ প্রস্তাব দিলেন তখন তারা ভয়ানক ভয় পেয়ে গেলেন কারণ এ প্রস্তাব তাদের শিক্ষক ঈসার (আঃ) শিক্ষার সম্পূর্ণ বিপরীতবিশেষ কোরে বাধা দিলেন বিশিষ্ট সাহাবা বারনাবাসকিন্তু সে বাধা সত্ত্বেও পল সাহাবাদের মত বদলাতে সমর্থ হোলেনবোধহয় কারণ এই ছিলো যে ব্যর্থ, পরাজিত ও প্রাণভয়ে পলায়নকারী শিষ্যরা উপলব্ধি কোরলেন যে, বনি এসরাঈলীদের মধ্যে ঈসার (আঃ) শিক্ষা প্রচার অসম্ভবযেখানে ঈসা (আঃ) নিজে ব্যর্থ হোয়ে গেছেন সেখানে শিষ্যরা হতাশ হবেন তাতে আশ্চর্য্য হবার কিছু নেইতারা বুঝলেন ঈসার (আঃ) নীতি বিসর্জন দিয়ে বাইরে অইহুদীদের মধ্যে প্রচার না কোরলে ঐ শখানেক শিষ্যের পর পৃথিবীতে ঈসার (আঃ) শিক্ষা লুপ্ত হোয়ে যাবেএকে বাঁচিয়ে রাখতে গেলে অইহুদীদের মধ্যে প্রচার করা ছাড়া আর উপায় নেইতারা বুঝলেন না বা বুঝলেও পাশ কাটিয়ে গেলেন যে ঈসা (আঃ) ও কাজ কোরতে নির্দিষ্টভাবে নিষেধ কোরে গেছেন কারণ জুডাই ধর্ম ও তার সংস্কার দুটোই শুধুমাত্র বনিএসরাঈলীদের মধ্যে সীমাবদ্ধওর বাইরে ওটা সম্পূর্ণ অচল

 

আমাদের বিশেষ কোরে মনে রাখতে হবে যে ইহুদীদের ধর্ম অর্থাৎ জুডাই ধর্ম গোত্রিয় ধর্ম, শুধুমাত্র বনিএসরাঈলীদের জন্যঈসাকে (আঃ) আল্লাহ পাঠিয়েছিলেন সীমিত দায়িত্ব দিয়ে, শুধু পথভ্রষ্ট বনিএসরাঈলীদের হেদায়াত কোরতেঈসা (আঃ) নিজে ছিলেন মুসার (আঃ) ধর্মের অনুসারী, তাঁর প্রত্যেক শিষ্যও ছিলেন ইহুদী, বনিএসরাঈলমতভেদ শুধু ছিলো রাব্বাই, সাদ্দুসাই ও ফারিসীদের অর্থাৎ আলেম শ্রেণীর সাথে, আদর্শগত, আকীদাগতপল ঈসার (আঃ) ঘোর বিরোধী ও তাঁকে নির্যাতনকারীদের প্রথম সারির একজন ছিলেন এটা বড় কথা নয়, কারণ পৃথিবীতে বহু উদাহরণ আছে যেখানে ঘোর বিরোধী নিজের ভুল বুঝতে পেরে পরে অকৃত্রিম, দৃঢ় সমর্থক হোয়ে গেছেনওমর বিন খাত্তাব (রাঃ), খালেদ বিন ওয়ালিদ (রাঃ), একরামা বিন আবু জাহেল (রাঃ) তার প্রকৃষ্ট উদাহরণবড় কথা হোল এই যে, পল ঈসার (আঃ) সঙ্গে থেকে সরাসরি তাঁর কাছ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেন নি, তাঁর সাহচর্য্য পান নিকাজেই ঈসার (আঃ) প্রকৃত শিক্ষা ও তার মর্ম তিনি পান নি, অথচ ঈসা (আঃ) পৃথিবী থেকে চোলে যাবার বেশ পরে, যারা সর্বক্ষণ ঈসার (আঃ) সাহচর্য্যে থেকে ছিলেন, তাঁর কাছ থেকে সরাসরি শিক্ষা পেয়েছিলেন তাদের চেয়ে বড় প্রবক্তায় পরিণত হোয়ে দাঁড়ালেন এবং তিনি যে শিক্ষা প্রচার আরম্ভ কোরলেন তা ঈসার (আঃ) শিক্ষা থেকে শুধু বহু দুরে নয়, প্রধান প্রধান ব্যাপারে একেবারে বিপরীতযা হোক, পলের দলের ইউরোপের বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ ও প্রচারের ফলে অইহুদীদের মধ্য থেকে অনেক লোক ঈসার (আঃ) ওপর বিশ্বাস এনে পলের নেতৃত্বে তার শিষ্যদের উপদেশ মতে চোলতে চেষ্টা আরম্ভ কোরলোতখন কিন্তু আর ঈসার (আঃ) শিক্ষা অবিকৃত নেইপল তার সুবিধা ও ইচ্ছামত ঈসার (আঃ) শিক্ষাকে যোগবিয়োগ কোরে এমন অবস্থায় নিয়ে গেছেন যে সেটা আর তখন ইহুদীদের অর্থাৎ মুসার (আঃ) ধর্মও নয়, কিম্বা মুসার (আঃ) ধর্মের বিকৃতি শুধরিয়ে সেটাকে ঈসা (আঃ) যে ভারসাম্যে ফিরিয়ে আনতে চেষ্টা কোরেছিলেন সেটাও নয়, পলের হাতে পোড়ে সেটা এক নতুন ধর্মের রূপ নিয়েছেবর্ত্তমানে খৃষ্টান ধর্মের অনেক পণ্ডিতরাই বোলছেন যে আমরা আজ যে খৃষ্টধর্ম দেখি এটাকে খৃষ্টধর্ম (Christainity) না বোলে পলিয় ধর্ম (Paulinity) বলা উচিতযা হোক ঐসব কারণে ঈসার (আঃ) শিক্ষার ঐ বিকৃত রূপটাকে একটা নতুন নাম দেয়া দরকার হোয়ে পড়লোমুসার (আঃ) ধর্ম অর্থাৎ জুডাই (ইহুদী) ধর্মের গলদ ও বিকৃতি সংস্কার কোরে সেটাকেই আবার পুনর্জীবন দেবার চেষ্টাকে মূল ইহুদী ধর্ম থেকে বিচ্ছিন্ন কোরেএকটি নতুন ধর্মই সৃষ্টি করা হোল এবং এই নতুন ধর্মের নাম দেয়া হোল খৃষ্টধর্মপল কর্ত্তৃক এই যে নতুন নামে নতুন একটি ধর্ম চালু করা হোল এটা কিন্তু ঈসার (আঃ) দেশে হোল না, কারণ ইহুদী পুরোহিতরা ঈসা (আঃ) ও তাঁর শিক্ষাকে প্রত্যাখ্যান কোরেছে ও তাঁর অনুসারীদের দেশ থেকে বহিষ্কার কোরে দিয়েছেপ্যালেস্টাইনে তখন ঈসার (আঃ) কোন অনুসারী নেই, থাকলেও গোপনে, ব্যক্তিগতভাবেসুতরাং এই নতুন ধর্মের পত্তন করা হোল জেরুসালেম নয়, প্যালেস্টাইনে নয়, বাইরে এন্টিয়ক (Antioch) নগরে (বাইবেল, নিউ টেস্টামেন্ট, এক্ট ১১:২৬)। আরও পরিহাসের ব্যাপার হোল এই যে, যে ঈসার (আঃ) নামে এই ধর্মের সূত্রপাত করা হোল সেই ঈসা (আঃ) তাঁর জীবনেও খৃষ্টধর্মবোলে কোন ধর্মের নামই শোনেন নি

 

পল ও তার অনুসারীরা যখন এই নতুন ধর্ম ইউরোপে প্রচার আরম্ভ কোরলেন তখন ইউরোপীয়ানরা নানা রকম দেবদেবীর, ভূতপেত্নীর পূজা কোরতোভূমধ্যসাগরের অপর পারেই ছিলো একেশ্বরবাদী জুডাই ধর্ম, অর্থাৎ মুসার (আঃ) মাধ্যমে প্রেরিত জীবনবিধানকিন্তু তা তারা গ্রহণ করে নি, কারণ ওটা সীমিত ছিলো শুধু বনিএসরাঈলীদের মধ্যে; ইহুদীরাই তাদের ধর্মকে বাইরের কাউকে গ্রহণ কোরতে দিতোনাতারা জানতো যে ও ধর্ম শুধু তাদের গোত্রিয় ধর্মযে জন্য ঈসা (আঃ) তা নিজেও অইহুদীদের মধ্যে প্রচার করেন নি, তাঁর শিষ্যদেরও তা কোরতে নিষেধ কোরে দিয়েছিলেনএখন পল যখন ঐ ধর্মের একটা বিকৃত রূপ ইউরোপীয়ানদের সামনে উপস্থাপিত কোরে তা গ্রহণ কোরতে বোললেন তখন তারা দেখলো যে ঐ বিকৃত রূপটাও তাদের দেবদেবী, ভূতপেত্নী পূজার চেয়ে অনেক ভালো, অনেক উন্নতএছাড়াও অন্যান্য কারণে পলের এই ধর্মসম্পূর্ণ ইউরোপে গৃহীত হোলইউরোপে এই ধর্ম সার্বিকভাবে গৃহীত হবার পর এক বুনিয়াদী সমস্যা দেখা দিলোমুসা (আঃ) ছিলেন বনি এসরাঈলীদের জন্য জীবনবিধান অর্থাৎ দীনের বাহক, যে দীন শরিয়াহ অর্থাৎ সমষ্টিগত জীবনের রাজনৈতিক, আর্থসামাজিক, আইনকানুন, দণ্ডবিধি ইত্যাদি এবং ব্যক্তিগত জীবনের আত্মশুদ্ধিরপ্রক্রিয়ার ভারসাম্যযুক্ত (ওয়াসাতা) ব্যবস্থাঐ দীনের আত্মার দিকটাকে পরিত্যাগ কোরে ওটার শরিয়াতের চুলচেরা বিশ্লেষণ কোরে সেটাকেই পালন করার আতিশয্যকেই ধর্ম পালন মনে করার বিরুদ্ধে প্রেরিত হোলেন ঈসা (আঃ)। তিনি বোললেনআমি মুসার (আঃ) শরিয়াহ (Law of Moses) বাতিল কোরতে প্রেরিত হই নি, বরং সেটাকে সত্যায়ন, স্বীকৃতি দিতে এসেছিকিন্তু তোমরা যে আত্মার দিকটাকে পরিত্যাগ কোরেছো সেটাকেই পুনঃপ্রতিষ্ঠা কোরতে এসেছিসুতরাং ঈসার (আঃ) শিক্ষার মধ্যে বিন্দুমাত্র জাতীয় শরিয়াহ নেই, আছে শুধু ব্যক্তিগতভাবে আত্মশুদ্ধির প্রক্রিয়াপল ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের প্রচারে ইউরোপ এই একতরফা, ভারসাম্যহীন ধর্ম গ্রহণ কোরলো ও তা তাদের জাতীয় জীবনে প্রতিষ্ঠার চেষ্টা কোরলোকারণ পেছনে বোলে এসেছি যে, মানুষ কখনই সার্বভৌমত্ব নিজের হাতে নিয়ে আইনকানুন তৈরী কোরেসেই মোতাবেক সমষ্টিগত জীবন যাপনের চেষ্টা করে নিখৃষ্টধর্ম গ্রহণ কোরে ইউরোপ খৃষ্টধর্মমতেই সমষ্টিগত জীবন পরিচালনা করার চেষ্টা কোরলোরোমে আসীন পোপ সমগ্র ইউরোপের জীবনব্যবস্থার পথ নির্দেশ দিতে আরম্ভ কোরলেন

 

আইনকানুন, দণ্ডবিধি, রাষ্ট্র ব্যবস্থা, অর্থনীতি, রাজনীতিহীন একটি ব্যবস্থা দিয়ে একটি সমষ্টিগত জীবন পরিচালনা অসম্ভব এটা সাধারণ জ্ঞানঅথচ পোপ ও ইউরোপীয় রাজারা সেই ব্যর্থ চেষ্টাই কোরলেন কারণ ধর্মীয় আদেশনিষেধ বাদ দিয়ে অর্থাৎ আল্লাহর সার্বভৌমত্বকে প্রত্যাখ্যান কোরে নিজেরা সার্বভৌম হোয়ে নতুন সংবিধান, আইনকানুন, দণ্ডবিধি প্রণয়ন কোরে নেয়া তখনও মানুষের কাছে অচিন্ত্যনীয় ব্যাপার ছিলোএই চেষ্টা কোরতে যেয়ে প্রতিপদে ইহলৌকিক ও পারলৌকিক জীবনের ব্যাপারে সংঘাত আরম্ভ হোল এবং ক্রমশ তা এক প্রকট সমস্যারূপে দেখা দিলোএই সংঘাতের দীর্ঘ ও বিস্তৃত বিবরণে না যেয়ে শুধু এটুকু বোললেই চোলবে যে এই সংঘাত এক সময়ে এমন পর্যায়ে যেয়ে পৌঁছালো যে ইউরোপীয় রাজা ও সমাজ নেতাদের সামনে দুটো পথ খোলা রোইলোহয় এই ধর্ম বা জীবনব্যবস্থাকে সম্পূর্ণ ত্যাগ কোরতে হবে, আর নইলে এটাকে নির্বাসন দিতে হবে মানুষের ব্যক্তিগত জীবনের সংকীর্ণ পরিধির সীমাবদ্ধতার মধ্যে, যেখান থেকে এটা রাষ্ট্রীয়, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে কোন প্রভাব বিস্তার না কোরতে পারেযেহেতু ধর্মকে মানুষের সার্বিক জীবন থেকে বিদায় দেয়া অর্থাৎ সমস্ত ইউরোপের মানুষকে নাস্তিক বানিয়ে দেয়া সম্ভব নয়, তাই শেষ পর্যন্ত ইউরোপীয় রাষ্ট্র ও সমাজ নেতারা দ্বিতীয় পথটাকে গ্রহণ কোরলেন এবং অষ্টম হেনরীর রাজত্বকালে ১৫৩৭ খৃষ্টাব্দে ইংল্যান্ডে প্রথম আনুষ্ঠানিকভাবে এই কাজ অর্থাৎ খৃষ্টান ধর্মকে মানুষের সার্বিক জীবন থেকে বিচ্ছিন্ন কোরে ব্যক্তিগত জীবনে নির্বাসিত করা হোল, দাজ্জালের জন্ম হোলইংল্যান্ডের পরে ক্রমে ক্রমে সমস্ত খৃষ্টান জগৎ এই নীতি গ্রহণ ও প্রয়োগে বাধ্য হোলএর পর থেকে খৃষ্টান জগতের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, শিক্ষা, আইনকানুন, দণ্ডবিধি, এক কথায় জাতীয় জীবনে এই মহাবিশ্বের স্রষ্টার আর কোন কর্ত্তৃত্ব রোইলো নাএর পর ইউরোপীয় খৃষ্টানরা ক্রমেই বস্তুবাদী (Materialistic) হোয়ে পোড়তে শুরু কোরলোএটা একটা পরিহাস (Irony) যে, যে জাতির সকল লোক এমন একটি ধর্ম গ্রহণ কোরলো যে ধর্মের মূলমন্ত্রই হোচ্ছে আত্মশুদ্ধি, কেউ এক গালে চড় দিলে তাকে অন্য গাল পেতে দাও, জোর কোরে গায়ের কোট খুলে নিলে তাকে আলখেল্লাটাও দিয়ে দাও, সেই জাতি একটি কঠোর বস্তুবাদী সভ্যতার জন্ম দেবেকিন্তু তাই হোল কারণ পেছনে যেমন বোলে এসেছি, সমষ্টিগতভাবে মানুষ যেটা গ্রহণ ও প্রয়োগ করে সেটার প্রভাবই প্রবল ও শক্তিশালী হোয়ে দাঁড়ায়, ব্যক্তি সেখানে গৌণ ও দুর্বল হোয়ে যায়খৃষ্টধর্মকে জাতীয় জীবন থেকে ব্যক্তি জীবনে নির্বাসিত কোরে আশা করা যেতো যে জাতীয় জীবনে ধর্মের মূল্যবোধ বিসর্জন দিলেও ব্যক্তি জীবনে ধর্মের প্রভাবে মানুষ পাপ ও অপরাধহীন হবেকিন্তু কার্য্যক্ষেত্রে তাও হোলো না, যে কোন পরিসংখ্যান বোলে দেবে যে পাশ্চাত্যে, খুন, জখম, ডাকাতি, হাইজ্যাক, বোমাবাজি, ধর্ষণ, ব্যভিচার ইত্যাদি প্রতিদিন ধাই ধাই কোরে বাড়ছেকারণ সমষ্টিগত বৃহত্তর জীবনের চাপে ব্যক্তি তার নিজস্ব চরিত্র বেশী দিন ধোরে রাখতে পারে নাবিশেষ কোরে যদি জাতীয় জীবনের আইনকানুন, দণ্ডবিধি, অর্থনীতি ইত্যাদি মানুষের তৈরী করা অর্থাৎ ত্রুটিপূর্ণ হয়সমষ্টিগত জীবনে এই বস্তুবাদ নিয়ে ইউরোপীয় খৃষ্টানরা গত ৪৭৪ বছরে ক্রমে ক্রমে যান্ত্রিক প্রযুক্তিগত বিজ্ঞান চর্চা কোরে প্রচণ্ড শক্তিশালী হোয়ে উঠলো ও বর্ত্তমানে এই শক্তিবলে সমস্ত পৃথিবীর কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ কোরছেদাজ্জাল (Dajjal) এখন পূর্ণবয়ষ্ক, যুবক

 

দাজ্জালের অর্থাৎ জুডিও খৃষ্টান বস্তুবাদী সভ্যতার আবির্ভাব মানুষ সৃষ্টির সময় থেকে পৃথিবীর ধ্বংস পর্যন্ত সমস্ত ঘটনার মধ্যে সর্ববৃহৎ ঘটনা, নুহের (আঃ) সময়ের মহাপ্লাবনে মানবজাতি ধ্বংস হোয়ে যাবার চেয়েও বড় ঘটনা এই জন্য যে, আল্লাহ যে উদ্দেশ্যে মানুষ, তাঁর খলীফা সৃষ্টি কোরেছিলেনঅর্থাৎ পরীক্ষা কোরে দেখা যে স্বাধীন ইচ্ছাশক্তিবিশিষ্ট এই সৃষ্টিটি তার স্রষ্টার সার্বভৌমত্বকে সম্মান কোরে স্রষ্টার দেয়া জীবনবিধান, দীন মোতাবেক জীবন যাপন করে, নাকি সে তার স্বাধীন ইচ্ছাশক্তিকে অপব্যবহার কোরে স্রষ্টার সার্বভৌমত্বকে প্রত্যাখ্যান কোরে নিজের জীবনবিধান নিজেই তৈরী কোরে সেই মোতাবেক তার সমষ্টিগত জীবন যাপন করেআদম (আঃ) থেকে শুরু কোরে চিরদিন স্রষ্টার সার্বভৌমত্বকে স্বীকার কোরে চলার পর ইহুদীদের জুডাই ধর্মের সংস্কারের ঈসার (আঃ) প্রচেষ্টার বিকৃত রূপটাকে ইউরোপের সমষ্টিগত জীবনে প্রয়োগের ব্যর্থতার ফলে যখন ঐ দীনকে সমষ্টিগত জীবন থেকে ব্যক্তিগত জীবনে নির্বাসিত করা হোল তখন মানবের সমষ্টিগত জীবনে প্রথমবারের মত স্রষ্টার সার্বভৌমত্বকে প্রত্যাখ্যান করা হোলএই প্রথম এবলিস মানুষকে, বনিআদমকে তওহীদ থেকে, সেরাতুল মুস্তাকীম থেকে (যে সেরাতুল মুস্তাকীমের ওপর ওঁৎ পেতে বসে থেকে সে আল্লাহর খলীফা বনি আদমের ওপর আক্রমণ চালাবে বোলে আল্লাহকে চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলো; (কোরানসুরা আরাফ, আয়াত ১৬, ১৭)) দীনুল কাইয়্যেমা অর্থাৎ সনাতন ধর্ম থেকে বিচ্যুত কোরতে সমর্থ হোলএটা আদম, আল্লাহর খলীফা, প্রতিনিধি সৃষ্টি করার মৌলিক প্রশ্ন, আল্লাহকে দেয়া এবলিসের চ্যালেঞ্জের মৌলিক প্রশ্ন, এই চ্যালেঞ্জে এটাই এবলিসের প্রথম বিজয় তাই দাজ্জালের জন্ম ও আবির্ভাব আদম (আঃ) থেকে কেয়ামত পর্যন্তমানুষের জীবনের সর্ববৃহৎ ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা

 

 

 

 

 

দুই

 

আল্লাহর রসুল বোলেছেননুহ (আঃ) থেকে শুরু কোরে আল্লাহর এমন কোন নবী হন নি যিনি তাঁর উম্মাহকে, অনুসারীদেরকে দাজ্জাল (Dajjal) সম্পর্কে সাবধান ও সতর্ক কোরে যান নিআমিও তোমাদের দাজ্জাল (Dajjal) সম্পর্কে সাবধান কোরছি[আবু ওবায়দা বিন যাররাহ (রাঃ) থেকে তিরমিযি, আবু দাউদ]

 

 

 

এখানে লক্ষ্য করার বিষয় হোচ্ছে এই যে, দাজ্জালের আবির্ভাব মানবজাতির জীবনের সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ ও বড় ঘটনা হবার কথায় মহানবী বোললেন, আদম (আঃ) থেকে কেয়ামত পর্যন্ত, কিন্তু সতর্কবাণী দেবার কথায় বোললেন, আদমের (আঃ) বহু পরে নুহ (আঃ) থেকে তাঁর পরবর্ত্তী নবীদের ও তাঁদের উম্মাহদেরঅর্থাৎ আদম (আঃ) থেকে নুহের (আঃ) আগে পর্যন্ত যে সব নবীরসুল (আঃ) এসেছেন তারা তাঁদের উম্মাহদের দাজ্জাল (Dajjal) সম্পর্কে সতর্ক করেন নিধরে নেয়া যায় যে, প্রয়োজন ছিলো না, নইলে তারা অবশ্যই তা কোরতেনপ্রশ্ন হোচ্ছে নুহের (আঃ) আগে পর্যন্ত দাজ্জাল (Dajjal) সম্বন্ধে মানুষকে সতর্ক করার প্রয়োজন কেন ছিলো না এবং নুহের (আঃ) সময় থেকে সেটার প্রয়োজন কেন আরম্ভ হোল?

 

এ প্রশ্নের উত্তর আল্লাহই জানেন, তবে আমি যা বুঝি তা হোচ্ছে এই যে, মানবজাতির ইতিহাসকে দুইটি প্রধান ভাগে বা পর্বে ভাগ করা যায়প্রথম ভাগটি আদম (আঃ) থেকে নুহের (আঃ) ঠিক আগে পর্যন্ত এবং দ্বিতীয় ভাগটি নুহ (আঃ) থেকে শুরু কোরে আজও চোলছেনুহের (আঃ) সময়ে মহাপ্লাবন হোয়ে মানুষসহ সমস্ত পৃথিবীর প্রাণী ধ্বংস হোয়ে যেয়ে নুহ (আঃ) থেকে মানবজাতি আবার আরম্ভ হওয়ায় নুহের (আঃ) এক নাম আদমে সানী অর্থাৎ দ্বিতীয় আদমনুহ (আঃ) থেকে বনি আদমের, মানুষ জাতির জীবনের, ইতিহাসের দ্বিতীয় অধ্যায়, পর্ব আরম্ভ হোলকোরানে আমরা আদমের (আঃ) পর থেকে নুহ (আঃ) পর্যন্ত কোন নবীরসুলের নাম পাই নাকিন্তু তার মানে এ নয় যে, ঐ সময়ের মধ্যে কোন নবী রসুল আল্লাহ পৃথিবীতে পাঠান নি; অবশ্যই তিনি পাঠিয়েছেন এবং বহু সংখ্যায় পাঠিয়েছেনকারণ এক লাখ চব্বিশ হাজার, মতান্তরে দুই লাখ চব্বিশ হাজার নবীরসুলের মধ্যে কোরানে আমরা নাম পাই মাত্র জনাত্রিশেকবাকিরা কোথায়? কবে এসেছেন? কোরানে আল্লাহও বোলেছেনআমি পৃথিবীর প্রতি জনপদে, লোকালয়ে আমার নবী পাঠিয়েছি (কোরানসুরা ইউনুস, আয়াত ৪৭, সুরা নহ্‌ল, আয়াত ৩৬, সুরা রা, আয়াত ৭)। এও বোলেছেনতাদের (পূর্ববর্ত্তী নবীরসুলদের) কতকের সম্বন্ধে তোমাকে [মোহাম্মদকে (দঃ)] জানালাম, কতকের সম্বন্ধে জানালাম না (কোরানসুরা মোমেন, আয়াত ৭৮)। এই যে মাত্র ত্রিশ জনের মত নবীরসুলদের নাম আল্লাহ তাঁর শেষ নবীর মাধ্যমে আমাদের জানালেন, তারা সবাই নুহের (আঃ) পর, তাঁর আগের নয়তার মানে নুহের (আঃ) আগে মানবজাতির মধ্যে বিরাট সংখ্যার নবীরসুল প্রেরিত হোয়েছেন যাদের নাম এবং কে পৃথিবীর কোথায়, কোন্‌ জাতি, কোন্‌ জনপদে প্রেরিত হোয়েছেন তা আমাদের জানা নেই

 

হিন্দু শাস্ত্রে (প্রকৃতপক্ষে হিন্দু বোলে কোন ধর্ম বা হিন্দু শাস্ত্র বোলে কোন শাস্ত্র পৃথিবীতে নেইবেদ, উপনিষদ, গীতায়, পুরাণে কোথাও হিন্দু শব্দই নেইশব্দটি এশিয়া মাইনর, খুব সম্ভব তুর্কী দেশ থেকে এসেছে সিন্ধু শব্দের অপভ্রংশ হিসাবেউপমহাদেশে প্রচলিত এই ধর্মের প্রকৃত নাম সনাতন ধর্ম, কোরানে যেটাকে বলা হোয়েছে দীনুল কাইয়্যেমা, শাশ্বত, চিরন্তন ধর্ম, অর্থাৎ তওহীদ (কোরানসুরা রূম, আয়াত ৪৩, সুরা বাইয়্যেনা, আয়াত ৫))। মানবজাতির জীবনের আয়ুষ্কালকে চারটি ভাগে ভাগ করা হোয়েছে এবং ভাগগুলিকে এক একটি যুগ বলা হোয়েছেপ্রথম যুগের নাম সত্য যুগ, দ্বিতীয় যুগের নাম ত্রেতা যুগ, তৃতীয় যুগের নাম দ্বাপর যুগ ও চতুর্থ যুগের নাম কলি যুগ এবং তার পরই অর্থাৎ কলি যুগ শেষ হোলেই মহাপ্রলয় অর্থাৎ কেয়ামত হোয়ে মানুষ, পৃথিবী সবই শেষ হোয়ে যাবেঐ ধর্মমতে সত্যযুগে সত্য ও মিথ্যার সংঘর্ষ হোলে শতকরা একশবারই সত্য জয়ী হতো, মিথ্যা পরাজিত হতো; ত্রেতা যুগে সত্য ও মিথ্যার সংঘর্ষ হোলে শতকরা পঞ্চাশবার সত্য জয়ী এবং শতকরা পঞ্চাশবার মিথ্যা জয়ী হতো, দ্বাপর যুগে ঐ রকম সংঘর্ষ হোলে মিথ্যা শতকরা পঁচাত্তর বার জয়ী, সত্য পঁচিশবার জয়ী ও শেষ কলিযুগে সত্যমিথ্যার সংঘর্ষে মিথ্যা শতকরা একশবারই জয়ী ও সত্য একশবারই পরাজিত হবেএটা একটা চিত্তাকর্ষক ব্যাপার যে, হিন্দু ধর্মের আবাসভূমি এই ভারত উপমহাদেশ থেকে বহু দুরে গ্রীক ও রোমানদের প্রাচীন ধর্মেও মানবজাতির আয়ুষ্কালকে চার ভাগে ভাগ করা হোয়েছেপ্রথমটি স্বর্ণ যুগ, দ্বিতীয়টি রৌপ্য যুগ, তৃতীয়টি তাম্র যুগ ও শেষটি লৌহ যুগমোটামুটি হিন্দু ধর্মের বিভাগের অনুরূপএসলাম ধর্মে ঠিক অমন পরিষ্কার যুগ বিভাগ না থাকলেও বর্ত্তমান সময় যে শেষ যুগ অর্থাৎ আখেরী যমানা তা সর্বত্র গৃহীত এবং মহানবীর বিভিন্ন হাদীস দিয়ে সমর্থিতসনাতন ধর্মমতে সত্য যুগে মানুষের আয়ু ছিলো এক লক্ষ বছর, ত্রেতা যুগে দশ হাজার বছর, দ্বাপরে দুই হাজার এবং কলি যুগে অর্থাৎ বর্ত্তমানে একশবিশ বছরমনে হয় এটা গড়পড়তা আয়ু ছিলো না, ঊর্দ্ধতম আয়ু ছিলো কারণ বর্ত্তমান কলি যুগে মানুষ ঊর্দ্ধতম একশবিশ বছরের মত বাঁচে দেখা যাচ্ছে

 

যা হোক, এখন প্রশ্ন হোচ্ছে নুহ (আঃ) কোন্‌ যুগের নবী ছিলেন? কতকগুলি কারণ থেকে আমার মনে হয় তিনি দ্বাপর যুগে জন্মেছিলেনকোরানে আল্লাহ বোলেছেননুহ নয়শপঞ্চাশ বছর তাঁর জাতির মধ্যে ছিলেন (কোরানসুরা আন্‌কাবুত, আয়াত ১৪)। আল্লাহ এখানে শব্দ ব্যবহার কোরেছেন নাকেশঅর্থাৎ তাঁর জাতির মধ্যে ছিলেনএখানে স্পষ্ট নয় যে নুহ (আঃ) তাঁর জাতির মধ্যে মোট সাড়ে নয়শবছর ছিলেন, নাকি নবুয়াত পাবার পর সাড়ে নয়শবছর তাঁর জাতির মধ্যে তওহীদ প্রচার কোরে ব্যর্থ হোয়েছিলেনযদি ধোরে নেই যে, তিনি তওহীদ প্রচার কোরেছেন সাড়ে নয়শবছর তবে অন্তত আরও চার পাঁচশবছর ওর সাথে যোগ কোরতে হবে, কারণ অবশ্যই তিনি জন্মের সঙ্গে সঙ্গে নবুয়াত পান নি, একটা পরিণত বয়সে পেয়েছেন; অর্থাৎ এই দাঁড়ায় যে, মহাপ্লাবনের সময় তাঁর বয়স ছিলো চৌদ্দশবা পনেরশবছরতারপর মহাপ্লাবনের পর তাঁর মুষ্টিমেয় অনুসারীদের মাঝেও তিনি বেশ কিছুকাল বেঁচেছিলেনঅর্থাৎ মোট দুহাজার বছরের কাছাকাছিআর যদি ধরে নেই যে, তিনি তাঁর জাতির মধ্যে মোট সাড়ে নয়শবছর ছিলেন এবং তারপর মহাপ্লাবন হোল, তাহোলেও তিনি প্লাবনোত্তর যে সময়টা তাঁর অনুসারীদের মধ্যে কাটালেন সেটা যদি তিন, চার বা পাঁচশবছর হোয়ে থাকে তা হোলেও সেই দুহাজার বছরের কাছাকাছিই যাচ্ছেদ্বাপর যুগের মানুষের ঊর্দ্ধতম আয়ু ছিলো দেড় দুহাজার বছরতাই আমি নুহকে (আঃ) দ্বাপর যুগের নবী মনে কোরি

 

এবার আসা যাক দাজ্জালের আবির্ভাবের ও সে সম্বন্ধে সতর্কীকরণের কাজ নুহ (আঃ) থেকে আরম্ভ হবার কারণেএর কারণ হোল সত্য ও ত্রেতা যুগে দাজ্জালের জন্মের সম্ভাবনাই ছিলো নাকারণ সত্য ও মিথ্যার যুদ্ধে সত্য যুগে শতকরা একশবার ও ত্রেতা যুগে শতকরা পঞ্চাশ বারই সত্যের যেখানে জয় হতো সেখানে দাজ্জালের জন্মের সম্ভাবনা (Potentiality) ছিলো নাকারণ মূলতঃ দাজ্জাল (Dajjal) হোচ্ছে চাকচিক্যময় প্রতারক যাকে আল্লাহর রসুল কায্‌যাব অর্থাৎ মিথ্যা, মিথ্যাবাদী বোলে আমাদের সঙ্গে পরিচয় কোরিয়ে দিয়েছেনদ্বাপর যুগে অর্থাৎ নুহের (আঃ) সময় থেকে আরম্ভ হোল দাজ্জালের মত একটি মিথ্যার আবির্ভাবের সম্ভাবনা, কারণ এই যুগে সত্য ও মিথ্যার দ্বন্দ্বে জয় পরাজয়ের অনুপাত হোয়ে দাঁড়ালো শতকরা পঁচাত্তর বার মিথ্যার জয়তাই নুহ (আঃ) থেকেই আরম্ভ হোল প্রত্যেক নবীর দাজ্জালের আবির্ভাব সম্বন্ধে সতর্কবাণী, যদিও প্রকৃতপক্ষে দাজ্জালের জন্ম হবে ঘোর কলিযুগে, বর্ত্তমানে, তবুও যেহেতু শতকরা পঁচাত্তর ভাগ মিথ্যার জয়ের সময় আরম্ভ হোল দ্বাপর যুগ থেকে, কাজেই তখন থেকেই নবী রসুলদের সতর্কবাণীও শুরু হোল

 

বিশ্বনবীর যেসব হাদীসে আমরা দাজ্জালের বন্দী হোয়ে থাকার ও যথাসময়ে প্রকাশ হবার কথা পাই সেগুলির প্রকৃত অর্থ এটাই; তখনকার দিনের মানুষকে রূপক অর্থে বলাকোন অজানা দ্বীপে দাজ্জাল (Dajjal) শৃংখলিত হোয়ে থাকাটা তার ঐ সম্ভাবনার (Potentiality) কথাই রূপকভাবে বর্ণিতআদম (আঃ) থেকে কেয়ামত পর্যন্ত অর্থাৎ মানবজাতির সম্পূর্ণ আয়ুষ্কালের মধ্যে সর্ববৃহৎ ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা হোলেও দাজ্জাল (Dajjal) সম্পর্কে সাবধানবাণী আদমের (আঃ) অনেক পরে নুহ (আঃ) থেকে আরম্ভ কেন হোল তার কারণ এইঅর্থাৎ নুহের (আঃ) আগে সত্য ও ত্রেতা যুগে দাজ্জালের মত এতবড় মিথ্যার প্রকাশ ও তার পৃথিবীকে পদানত করার কোন সম্ভাবনা (Potentiality) ছিলো না

 

এখানে বিভিন্ন হাদীসে বর্ণিত ইবনে সাইয়াদ (রাঃ) সম্বন্ধে কয়েকটি কথা বলা প্রয়োজন, কারণ প্রকৃত ব্যাপার বুঝতে না পেরে একে অনর্থক অতি গুরুত্ব দেয়া হোয়েছে, এমনকি মেশকাতে একটি পুরো অধ্যায়ই ইবনে সাইয়াদের ওপর দেয়া হোয়েছে, অথচ এটা এমন কোন গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাই নয়

 

ব্যাপারটা এই: বিশ্বনবীর সময় মদীনায় এক ইহুদী পরিবারে এক শিশু জন্ম নেয়শিশুটি বোধহয় কিছুটা অস্বাভাবিক ছিলো, কারণ এ খবর মহানবীর কাছে পৌঁছলে তিনি তাকে দেখতে যানকিন্তু একে সেই নির্দিষ্ট দাজ্জাল (Dajjal) বোলে আল্লাহর রসুল অবশ্যই মনে করেন নিযেখানে তিনি জানেন যে, প্রকৃত দাজ্জাল (Dajjal) তাঁর বহু পরে মাহ্‌দী (আঃ) ও ঈসার (আঃ) সময় আবির্ভূত হবে এবং ঈসার (আঃ) হাতে ধ্বংস হবে সেখানে তিনি তাঁর নিজের পবিত্র উপস্থিতির সময় মদীনায় কাউকে সেই নির্দিষ্ট দাজ্জাল (Dajjal) বোলে মনে কোরবেন কেমন কোরে? তাছাড়া তিনি তো নিজেই বোলেছেন যে দাজ্জাল (Dajjal) মক্কায় এবং মদীনায় প্রবেশ কোরতে পারবে না (হাদীসবোখারী এবং মোসলেম) অথচ ইবনে সাইয়াদ (রাঃ) জন্মেছেনই মদীনায় এবং মক্কাতেও গেছেন হজ্ব কোরতেতাছাড়া ইবনে সাইয়াদ (রাঃ) মোসলেম হোয়েছিলেন এবং তার দাজ্জাল (Dajjal) হওয়ার সম্বন্ধে নিজেই বোলেছেনআল্লাহর রসুল কি বলেন নি যে, দাজ্জালের কোন সন্তান হবে না, অথচ আমার সন্তান আছে; তিনি কি বলেন নি যে, দাজ্জাল (Dajjal) কাফের হবে আর আমি মোসলেম (হাদীসআবু সাইদ খুদরী (রাঃ) থেকে মোসলেম)। মোট কথা মদীনার আবু সাইয়াদ (রাঃ) দাজ্জাল (Dajjal) ছিলেন না এবং তার দাজ্জাল (Dajjal) হবার কোন সম্ভাবনাই ছিলো নাযে ঈসার (আঃ) হাতে মৃত্যুর কথা বিশ্বনবী ভবিষ্যদ্বাণী কোরে গেছেন, সেই ঈসার (আঃ) বহু পূর্বেই ইবনে সাইয়াদের (রাঃ) স্বাভাবিক মৃত্যু হোয়েছেকখনো কখনো আল্লাহর রসুল নবুয়াতের মিথ্যা দাবিদার ও অত্যাচারী শাসকদের দাজ্জাল (Dajjal) বোলে অভিহিত কোরেছেন, কিন্তু তা আখেরী যমানার সেই নির্দিষ্ট দাজ্জাল (Dajjal) নয় যার সম্বন্ধে নবী রসুলরা মানবজাতিকে সতর্ক ও সাবধান কোরে এসেছেনঅথচ বুঝতে না পেরে ইবনে সাইয়াদকে (রাঃ) সেই প্রকৃত দাজ্জাল (Dajjal) বোলে চিহ্নিত করার চেষ্টায় হাদীসে একটি পুরো অধ্যায়ই যোগ করা হোয়েছেআমি এর কোন গুরুত্ব দেই না, কারণ প্রকৃত দাজ্জাল (Dajjal)কে আমি আল্লাহ ও তাঁর রসুলের দয়ায় চিহ্নিত কোরতে পেরেছি

 

বিশ্বনবীর সময় মানুষ যে বর্ত্তমানের জুডিওখৃষ্টান যান্ত্রিক সভ্যতার মত আত্মাহীন একটি মহাশক্তি সম্বন্ধে ধারণা কোরতে অসমর্থ ছিলো, যে জন্য তাঁকে এ সম্বন্ধে রূপক (Alligorically) বর্ণনা কোরতে হোয়েছে, তার প্রকৃষ্ট প্রমাণ এই ইবনে সাইয়াদের (রাঃ) ঘটনা ও ওটাকে এত গুরুত্ব দেয়া

 

 

 

 

 

তিন

 

আল্লাহর রসুল দাজ্জালের ফেত্‌না থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চেয়েছেন[আয়েশা (রাঃ) থেকে বোখারী]

 

 

 

এই হাদীসটিকে আমি দাজ্জালের আবির্ভাবের গুরুত্বের ব্যাপারে একটি উল্লেখযোগ্য হাদীস বোলে মনে কোরিকারণ লক্ষ্য কোরতে হবে, আল্লাহর কাছে আশ্রয় কে চাইছেনতিনি আর কেউ নন, তিনি সর্বযুগের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব, সমগ্র মানবজাতির পথ প্রদর্শক, আল্লাহর কয়েক লক্ষ নবীরসুলের (আঃ) নেতা, মাকামে মাহ্‌মুদায় যে একটি মাত্র মানুষকে আল্লাহ স্থান দেবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, মানুষ জাতির মুকুটমণি মোহাম্মদ বিন আবদ আল্লাহ (দঃ)। এই মানুষ যখন কোন ফেত্‌না অর্থাৎ বিপদ, সংকট, অশান্তি, গোলযোগ থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করেন তবে সে ফেত্‌না কত বড় ফেত্‌না সেটা বোঝাবার জন্য যুক্তিতর্কের প্রয়োজন করে নাএখানে আমি আবার বোলছি, আল্লাহর রসুল দাজ্জালের আবির্ভাবকে যে গুরুত্ব দিয়ে গেছেন আমাদের আলেম বোলে পরিচিত শ্রেণীটি তার লক্ষ ভাগের এক ভাগও দেননিযে ভয়াবহ ফেত্‌না থেকে আল্লাহর সর্বশ্রেষ্ঠ নবী আল্লাহর কাছে আশ্রয় চেয়েছেন, আল্লাহর সার্বভৌমত্বকে, রবুবিয়াতকে প্রত্যাখ্যান কোরে সমস্ত মানব জাতিকে দিয়ে নিজেকে রব, প্রভু বোলে স্বীকার কোরিয়েছে, সেই দাজ্জালের চেয়ে এই শ্রেণীর কাছে দাড়ি, টুপি এবং অন্যান্য অনেক কম গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারগুলি অনেক বেশী প্রয়োজনীয়, গুরুত্বপূর্ণকারণও আছেআকীদার বিকৃতির জন্য এই দীনুল এসলামের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য, এর অস্তিত্বের কারণ এদের সামনে থেকে অদৃশ্য হোয়ে যেয়ে অন্য লক্ষ্য, অন্য উদ্দেশ্য এসে স্থান কোরে নিয়েছেসুতরাং অবশ্যম্ভাবীরূপে তাদের অগ্রাধিকারের (Priority) ধারণাও বিকৃত হোয়ে গেছেতাই তাদের কাছে প্রকৃত তওহীদ ও তওহীদ প্রতিষ্ঠার জেহাদের চেয়ে দাড়ি, টুপি, মোছ, পাজামার গুরুত্ব বেশীএদের অগ্রাধিকারের ধারণা (আকীদা) সেই প্রতিবেশীদের মত যারা কপালে ডাকাতের গুলী লেগে নিহত গৃহস্বামীর মৃতদেহ দেখে বোলেছিলেনইস্‌! অল্পের জন্য চোখটা বেঁচে গেছেযাক্‌, এখানে ও বিষয় আলোচনার নয়, এখানে শুধু দাজ্জালের আবির্ভাবের গুরুত্বের কথা (এ বিষয়ে পাঠকের কৌতুহল হোলে তাকে আমার লেখা এ ইসলাম ইসলামই নয়বইটি পড়তে অনুরোধ কোরছি)। আল্লাহর কাছে দাজ্জালের ফেত্‌না থেকে বিশ্বনবীর আশ্রয় প্রার্থনা বুঝিয়ে দেয় যে, দাজ্জালের আবির্ভাব কত বড় ঘটনা

Advertisements

About nishataboni

i am a teacher of abdul odud shah degree college. i want to creat free blog site.
This entry was posted in ইসলাম ধর্ম and tagged . Bookmark the permalink.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s