Computer নেটওয়ার্ক?!?!?!?!

 

Computer নেটওয়ার্ক?!?!?!?!……

যখন একাধিক Computer নিজেদের মধ্যে রিসোর্স(ফাইল ও অন্যান্য ডিভাইস) সমূহ শেয়ার করে একে অন্যে ব্যাবহার করতে পারে তখন তাকে Computer নেটওয়ার্ক বলে।
Computer নেটওয়ার্ক কিভাবে করা যায়?
সাধারনত ২টি উপায়ে Computer নেটওয়ার্ক করা যায়।
(১)ওয়্যার। (২) ওয়্যারলেস।
Computer নেটওয়ার্ক কত প্রকার?
সাধারনত Computer নেটওয়ার্কে ৩ ভাগে ভাগ করা হয়।
(১) LAN (২) MAN (৩)WAN
(১) LAN {লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্কঃ সাধারনত বিভিন্ন অফিসে একাধিক Computer এর মধ্যে হয়ে থাকে }।
(২) MAN{মেট্রপলিটন এরিয়া নেটওয়ার্কঃ সাধারনত বিভিন্ন জেলার শাখা অফিস সমূহের মধ্যে ইন্টারনাল নেটওয়ার্ক, বিভিন ব্যাংক}।
(৩)WAN{ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্কঃ সাধারনত বিভিন দেশ নিয়ে গঠিত, ইন্টারনেট এদের অন্ত্রভূক্ত}।
——————————————————————————————–
Network আর্কিটেকচারঃ

টপোলজি কি?
কোন নেটওয়ার্কে computer সমূহ একটি আরেক্টির সাথে বিভিন্ন ভাবে সংযুক্ত থাকে। এই সংযুক্ত থাকার পদ্ধতিসমূহকে টপোলজি বলা হয়।
টপোলজির প্রকারভেদঃ
(১)বাস টপোলজি (২)স্টার টপোলজি (৩)রিং টপোলজি (৪)মেশ টপোলজি (৫)হাইব্রিড টপোলজি–(ক) স্টার বাস (খ)স্টার রিং।

Network মিডিয়াঃ
Network মিডিয়া কি?

নেটওয়ার্কের ডিভাইস সমূহ যে মাধ্যমে সংযুক্ত করা থাকে তাকে Network মিডিয়া বলে।
Network মিডিয়ার প্রকারভেদঃ
ওয়ার মিডিয়াঃ-
(১)কোএক্সিয়াল ক্যাবল (২)টু-স্টেট পেয়ার ক্যাবল(৩)ফাইবার অপটিক ক্যাবল।
ওয়ারলেস মিডিয়াঃ-
(১)রেডিও ট্রান্সমিশন (২)লো-পাওয়ার সিঙ্গল ফ্রিকোয়েন্সি ট্রান্সমিশন (৩) হাই-পাওয়ার সিঙ্গল ফ্রিকোয়েন্সি ট্রান্সমিশন (৪)স্প্রেড স্পেক্ট্রাম রেডিও ট্রান্সমিশন (৫)মাইক্রোওয়েভ ট্রান্সমিশন (৬)টেরেস্ট্রিয়াল মাইক্রোওয়েভ ট্রান্সমিশন (৭)স্যাটালাইট মাইক্রোওয়েভ ট্রান্সমিশন (৮)ইনফ্রারেড ট্রান্সমিশন (৯)পয়েন্ট টু পয়েন্ট ইনফ্রারেড ট্রান্সমিশন (১০)ব্রডকাস্ট ইনফ্রারেড ট্রান্সমিশন।
মিডিয়া কানেকটরঃ-
(১)BNC কানেকটর{ডিশ লাইনে}
(২)RJ-45 কানেকটর{LAN card এ}
(৩)RJ-11 কানেকটর{T-ফোনএ}
(৪) ফাইবার অপটিক এসটি কানেকটর {ফাইবার অপটিক ক্যাবলএ}।
——————————————————————————————–
Netwonkএ কোন PCর পরিচয় বা পরিচিতিঃ
এ পর্যায়ে কোন PC কে Networkএ যুক্ত করতে চাইলে দরকার হবে PCর পরিচিতি। PCর পরিচিতি বলতে বুঝায় IP Address এবং MAC Address ।
IP address:
IP address তখনি প্রয়োজন হবে যখন কোন PC Networkএ যুক্ত হবে।
IP address কোন Network PCর দুটি তথ্য বহন করে।
{Network ID}+{Host ID}
Network ID: PC টি যে Networkএ সংযুক্ত তার ID।
Host ID: PC টি উক্ত Network কত নম্বর Host তার ID।
MAC Address: এটি কে হার্ডওয়ার Address ও বলা হয়। এই Address টি হার্ডওয়ার নির্মাতাগন দিয়ে থাকেন। Computer নেটওয়ারকিং এ কোন হার্ডওয়ার Address ইউনিক হয়ে থাকে।
Computer এর হার্ডওয়ার Address বলতে LAN Card এর MAC Address কে বুঝায়। এটি cmd তে {ipconfig /all} command এর মাধ্যমে দেখাযায়।

//  

Advertisements

About nishataboni

i am a teacher of abdul odud shah degree college. i want to creat free blog site.
This entry was posted in নেটওয়ার্ক and tagged . Bookmark the permalink.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s